রাত ১:১১, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







মুজিববর্ষের কর্মসূচি

পানকৌড়ি নিউজ: আগামী বছর দেশে পালিত হবে ‘মুজিববর্ষ’। স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সরকার আগামী বছরকে মুজিববর্ষ হিসেবে ঘোষণা করেছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ১৭ মার্চ শুরু হয়ে মুজিববর্ষের কর্মসূচি চলবে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত। ২০২১ সাল দেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি হওয়ায় মুজিববর্ষেও সঙ্গে সঙ্গেও সুবর্ণ জয়ন্তীর কর্মসূচিও পালিত হবে। ইতোমধ্যে নির্ধারণ করা হয়েছে মুজিব বর্ষের ক্ষণগণনার সময়সূচিও। জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ১০ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে এই ক্ষণগণনা।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে সরকারিভাবে পালিত হবে নানা কর্মসূচি। ইতোমধ্যে প্রায় সবগুলো কর্মসূচির খসড়া প্রণয়ন সম্পন্ন হয়েছে। চলছে মুজিববর্ষের থিম সং ও লোগো নির্বাচনের কার্যক্রম। জাতীয় কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও দফতর এজন্য পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালন করবে। এসব মন্ত্রণালয় ও দফতর জনগণকেও দেবে বিশেষ ধরনের সেবা। সরকার ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনও নিজস্ব কর্মসূচির মাধ্যমে মুজিব বর্ষ পালন করবে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ একাধিক রাজনৈতিক দলও জাঁকজমকপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালনের কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সম্প্রতি জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিব বর্ষের কর্মসূচির নানাদিক তুলে ধরেছেন।

মুজিববর্ষ পালনে জাতীয় পর্যায়ে গঠন করা হয়েছে দুটি কমিটি। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি গঠিত হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় এবং জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি। উদযাপন কমিটির আহ্ববায়ক করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। আর বাস্তবায়ন কমিটির আহ্ববায়ক হয়েছে জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলামকে। দুটো কমিটিতেই সরকারের উধ্বর্তন কর্মকর্তা, বরেণ্য রাজনীতিক, সাহিত্যিক, সাংবাদিকসহ স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিবর্গকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মুজিববর্ষ সফল করতে গত এপ্রিলে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সভা করা হয়। ওই সভায় গঠন করা হয় ৮টি উপকমিটি। এগুলো হলো সেমিনার, ওয়ার্কশপ, আলোচনা সভা আয়োজন উপকমিটি; আন্তর্জাতিক কর্মসূচি যোগাযোগ উপকমিটি’ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও প্রদর্শনী আয়োজন উপকমিটি; প্রকাশনা ও সাহিত্য অনুষ্ঠান উপকমিটি; আন্তর্জাতিক প্রকাশনা অনুবাদ উপকমিটি; ক্রীড়া ও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট আয়োজন উপকমিটি; মিডিয়া প্রকাশ ও ডক্যুমেন্টেশন উপকমিটি এবং চলচ্চিত্র তথ্য চিত্র উপকমিটি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এসব উপকমিটি তাদের কর্মসূচি প্রণয়ন করে ইতোমধ্যে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির কাছে হস্তান্তর করেছে। উপকমিটি ছাড়াও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও দফতর থেকে কর্মসূচির প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এসব প্রস্তাব পর্যালোচনা করে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের নিরীখে তাৎপর্যপূর্ণ ও গুরুত্ববহ বিষয়গুলো সমন্বয় করে একটি বিষয়ভিত্তিক কর্ম পরিকল্পনা প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, দফতর, বিভাগ ইতোমধ্যে নিজ নিজ কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে। কেন্দ্রীয় তদারকির বাইরেও জেলা উপজেলা প্রশাসন, সরকারি বেসরকারি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে নিজস্ব কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে।

কর্মপরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে তথ্য ও যোগোযোগ বিভাগের মুজিব বর্ষের ওয়েবসাইট তৈরি, লোগো নির্বাচন ও উন্মোচন, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের থিম সং নির্বাচন, জাতীয় সংসদে বিশেষ অধিবেশন আয়োজন, মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয় কর্তৃক বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের জন্মদিন পালন, মন্ত্রিপরিষদের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর নামে একটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রবর্তন, বাংলা ও ইংরেজিতে জন্মশতবার্ষিকী স্মারকগ্রন্থ প্রকাশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ইউনেস্কোতে বঙ্গবন্ধুর নামে পুরস্কার প্রবর্তন, ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন ও বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিশ্বের আরও ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু চেয়ার স্থাপন, ইউনিভার্সিটি অব ক্যামব্রিজে বঙ্গবন্ধু সেন্টার স্থাপন, লন্ডনে মাদাম তুসো জাদুঘর ও জাতিসংঘ সদর দফতরে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন, উইমেন, পিচ অ্যান্ড সিকিউরিটি শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন, জুলিও কুরি পদক প্রাপ্তি দিবস উদযাপন, কফি টেবিল বই প্রকাশ; বঙ্গবন্ধুর সাত মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইংরেজি ছাড়াও হিন্দি, উর্দু, ফরাসি, জার্মান, চাইনিজ, আরবি, ফারসি, স্প্যানিশ, রুশ, ইতালীয়, কোরীয় ও জাপানি-এই ১২টি ভাষায় অনুবাদ। জাতীয় বাস্তবায়ন ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বঙ্গবন্ধুর বায়োগ্রাফি প্রকাশ। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম কর্তৃক বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী উদযাপন ও বাংলাদেশকে কান্ট্রি অব ফোকাস হিসেবে উপস্থাপন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে অনুবাদগ্রন্থ প্রকাশ (১ম পর্ব)। পরে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সিআরআই যৌথ উদ্যোগে অনুবাদ গ্রন্থ (২য় পর্ব) প্রকাশ করবে। বাংলা একাডেমি বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মভিত্তিক একশটি প্রকাশনা করবে, আগামী বছরের অমর একুশে বই মেলা ও ঢাকা লিট ফেস্ট উৎসর্গ হবে বঙ্গবন্ধুর নামে। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য ২ থেকে ৩ মিনিটের ২৪টি খণ্ড ভিডিও চিত্র নির্মাণ,৬-১০ মিনিটের ৭টি ওয়েব সিরিজ, ১২টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচিত্র, ১০ মিনিট ব্যাপ্তির ৬টি অ্যানিমেটেড শিশুতোষ চলচ্চিত্র নির্মাণ এবং বিদেশে মিডিয়া কনফারেন্সের আয়োজন করা হবে।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ ফুটবলের আয়োজন করবে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় ভাঙ্গায় শেখ মুজিবুর রহমান মানমন্দির স্থাপন করবে, শিল্প মন্ত্রণালয় শিল্প পুরস্কার প্রদান করবে। মন্ত্রিপরিষদ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সদ্য স্বাধীন দেশ পুনর্গঠন ও প্রশাসনিক সংস্কার বিষয়ে বঙ্গবন্ধুর কর্মসূচি নিয়ে গবেষণা সেমিনার ও কর্মশালার আয়োজন করবে। মন্ত্রিপরিষদ জাতির পিতার সঙ্গে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী কাজ করেছেন তাদের তালিকা সংগ্রহ করে যথাযথ সম্মাননা প্রদান করবে।