রাত ২:০০, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







শেখ হাসিনার রাজনৈতিক এবং আদর্শিক উত্তরাধীকারীদের সমাবেশ ঘটবে নতুন কমিটিতে

লিয়ন মীর: ‘আগামী ২০ ও ২১ তারিখ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলন। আওয়ামী লীগের এই সম্মেলন দলমত নির্বিশেষে রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনার বড় জায়গা দখল করতে সক্ষম হয়েছে।’

‘একইসাথে রাজনৈতিক অঙ্গন ছাড়াও দেশের সর্বত্রই চলেছে এই আলোচনা। কি চায়ের  কাপ, কি খাবারের টেবিল সবখানেই আওয়ামী লগের সম্মেলন নিয়ে আলোচনার ঝড়। আর এই আলোচনার রসদ যোগাচ্ছে প্রতিনিয়ত সংবাদমাধ্যমের চমক মাখানো খবর।’

‘দলটির সভাপতি শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প না থাকায় এই পদ নিয়ে মানুষের কোনো মাথাব্যাথা নেই। আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু সাধারণ সম্পাদক পদ। কেননা এই পদটি অতি গুরুত্বপূর্ণ এবং সম্মানজনক। দীর্ঘ দিনের ত্যাগ-তিতিক্ষার মূল্যায়ন করা হয় এই পদ প্রদানের মাধ্যমে।’

‘বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বপদে থাকছে কি থাকছে না তা নিয়ে চলছে সর্বত্রই মুখরোচক নানা গুঞ্জন। ওবায়দুল কাদের অসুস্থ থাকায় এই পদে পরিবর্তনের আভাস আসলেও  সেটা হচ্ছে না বলে নানা সূত্র নিশ্চিত করেছে। একইসাথে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অধিকাংশ সংসদ সদস্য মনে করেছেন ওবায়দুল কাদেরই এই পদের যোগ্য এবং তিনি শারীরিকভাবে এখনো এই পদে দায়ীত্ব পালনে পুরোপুরি ফিট।’

‘২১তম জাতীয় সম্মেলন সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ইতোমধ্যে সেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, শ্রমিকলীগ ও কৃষকলীগসহ এই চারটি অঙ্গসংগঠনের সম্মেলন সম্পন্ন করেছে। একইসাথে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিনের আওয়ামী লগের সম্মেলনও সম্পন্ন করেছে দলটি। সবগুলো শীর্ষ পদেই এসেছে নতুন মুখ ও তারুন্যের ছোয়া। বাদ পড়েছেন সুদ্ধি অভিযানে বিতর্কিত নেতারা।’

সুদ্ধি অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন সয়ং প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। ‘চলমান এই সুদ্ধি অভিযানের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগের সম্মেলন। একারণেই এবারের সম্মেলন এতোবেশি আলোচিত। যেসব নেতারা শেখ হাসিনার রাজনৈতিক আদর্শ , দর্শন ও সচ্ছাতার জায়গা থেকে বিচ্যুত হয়েছেন তারা যত বড় নেতাই হোক না কেন পদ হারাতে হবে। কোনো তদবিরেই তাদের পদ ধরে রাখতে পারবেন না। এটাও যানা গেছে কোনো নেতাই কারো জন্য তদবির করছেন না।’

‘কেননা স্ব স্ব পদের জবাবদিহিতা চলছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছেন। আওয়ামী লীগের সম্পাদক মন্ডলির এক নেতা জানিয়েছেন, এবারের সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক এবং আদর্শিক উত্তরাধীকারিদেরই সমাবেস ঘটবে। অর্থলোভীরা শেখ হাসিনার কাছে কোনো জায়গা পাবে না। না শেখ হাসিনার দলে, না শেখ হাসিনার সরকারে।’