সকাল ৮:৪৯, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







আ. লীগের ২১তম সম্মেলন: রাজনীতিতে অনুকরণীয় পরিবর্তন বয়ে আনবে

লিয়ন মীর: ‘উপমহাদেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী ও প্রাচীনতম বড় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগেরে আসন্ন ২১তম কেন্দ্রীয় সম্মেলন রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন বয়ে আনবে এবং এই পরির্বতন অন্যান্য রাজনৈতিক দলের জন্য অনুকরণীয় হয়ে উঠবে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ  নেতা।’

‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সমৃদ্ধির দিকে অগ্রসরমান বাংলাদেশের গতির সঙ্গে তাল মেলাতে পারে এমন একটি শক্তিশালী আওয়ামী লীগ গড়ে তোলা হবে এবারের সম্মেলনের মাধ্যমে।’

‘অভিজ্ঞ নেতাদের পাশাপাশি তরুণদের সংমিশ্রণে আওয়ামী লীগকে নতুন করে গড়ে তুলার পরিকল্পনা করছেন দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চলমান শুদ্ধি অভিযানের আলোকে স্বচ্ছ, গ্রহণযোগ্য, জনপ্রিয়, যোগ্য ও ত্যাগীরা স্থান পাবে। আসন্ন এ সম্মেলনের মাধ্যমে দল ও সরকারকে আলাদা করার প্রক্রিয়া অনেকখানি এগিয়ে যাবে বলে তারা মনে করছেন।’

‘এবার এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে দলকে যুগোপযোগী করে সাজাবেন দলীয়প্রধান শেখ হাসিনা। এর অংশ হিসেবেই দল ও সরকার আলাদা করার বিষয়টি খুব জোরেশোরে আলোচিত হচ্ছে। যদিও এই প্রক্রিয়ার কথা আরো আগে থেকেই শোনা গেলেও এবার তা কার্যকর হতে যাচ্ছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর মাধ্যমে সরকারকে দলের প্রতি নির্ভরশীল করা হবে। দল সরকারের প্রতি নির্ভরশীল হবে না, বরং দল সরকার পরিচালনা করবে। এতে সরকারে যারা আছেন বা সংসদ সদস্য যারা আছেন, তারা দলের কাছে জবাবদিহি করবেন। তৃণমূল নেতাকর্মীদের তারা বেশি মূল্যায়ন করতে বাধ্য হবেন।’

আওয়ামী লীগে এমন আলোচনা হচ্ছে যে, ‘একজন একাধিক দায়িত্বে থাকলে দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। সেজন্যই যারা দলের পদে থাকবেন তারা সরকারে দায়িত্ব পাবেন না, আর যারা সরকারের কোনও দায়িত্বশীল পদে থাকবেন তাদের দলীয় পদ দেওয়া হবে না।’

‘এই প্রক্রিয়ায় অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো গড়ে উঠলে তাহলে বাংলাদেশের রাজনীতিতে যে উন্নয়ন ঘটবে সেটা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। রাজনীতিতে তৈরি হবে নতুন ধারা। যার সুফল ভোগ করবে দেশের সাধারণ মানুষ।’