দুপুর ২:৪৭, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







প্রয়োজনের বেশি পানি পান করলে শরীরে জটিল সমস্যা দেখা দিতে পারে

পানকৌড়ি নিউজ: ‘যেহেতু পানি পান করা আবশ্যক, অনেকেই প্রয়োজনের অতিরিক্ত পরিমাণ পান করে থাকেন। অথচ একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক ৭-৯ গ্লাস পরিমাণ পানি পান করা প্রয়োজন। এর চেয়ে কম কিংবা বেশি হলেই বিভিন্ন ধরনের শারীরিক জটিলতা দেখা দিতে থাকে। ডিহাইড্রেশন সম্পর্কে জানা থাকলেও, অতিরিক্ত পানি পানের ফলে কী ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে সেটা জানেন না অনেকেই। আজকের ফিচারে সে বিষয়ের প্রতি আলোকপাত করা হল।’

মাথা ঘোরানো ও বমিভাব
‘ডিহাইড্রেশন বা পানিশূন্যতার মতো অতিরিক্ত পানি পানের ক্ষেত্রেও বমিভাব ও মাথা ঘোরানোর সমস্যা দেখা দেয়। অতিরিক্ত পানি পান করা হলে কিডনির উপর চাপ পড়ে এবং কিডনি বাড়তি পানিকে প্রসেস করতে পারে না। ফলে অতিরিক্ত এই পানি শরীর সংগ্রহ করা শুরু করে। এটা থেকেই বিভিন্ন ধরনের অস্বস্তিদায়ক শারীরিক লক্ষণ যেমন- মাথা ঘোরানো, বমিভাব এমনকি ডায়রিয়ার মতো সমস্যাও দেখা দেওয়া শুরু হয়।’

মাথাব্যথা
‘মাথা ঘোরানো, বমিভাব ও ডায়রিয়ার মতো পানিশূন্যতা ও অতিরিক্ত পানি পানের ক্ষেত্রে সাধারণ শারীরিক লক্ষণ হলো দিনভর মাথাব্যথা থাকা। অতিরিক্ত পানি পান করা হলে রক্তে লবণের মাত্রা কমে যায়। এতে করে কোষগুলো ফুলে যায়। এমনকি অতিরিক্ত পানি পানের ফলে মগজ স্বাভাবিকের চাইতে ফুলে ওঠে এবং মাথার খুলিতে চাপ প্রয়োগ করে। এটা থেকে মাথাব্যথার সমস্যাটি দেখা দেয়।’

হাত-পা ও ঠোঁট বিবর্ণ হয়ে যাওয়া
‘অতিরিক্ত পানি পানের ফলে হাইপোন্যাট্রেমিয়া (hyponatremia) দেখা দেয়। স্বাভাবিকের চাইতে রক্তে সোডিয়ামের মাত্রা কমে গেলে হাইপোন্যাট্রেমিয়া হয়। এর ফলে হাত, পা ও ঠোঁটে ফুলে যায় এবং বিবর্ণ হয়ে যায়। যারা খাপছাড়াভাবে পানি পান করে, তাদের এ কারণে ওজনও বেড়ে যায়।’

পেশী দুর্বল হয়ে পড়া
‘সঠিকভাবে কাজ করা ও স্বাস্থ্যকর শরীর পাওয়ার মূলমন্ত্রই হলো সবকিছু নিয়ন্ত্রণে ও ব্যালেন্সে থাকা। যখনই প্রয়োজনের বেশি পানি পান করা হবে, ইলেক্ট্রোলাইটের মাত্রা কমে যাবে। এতে করে সুস্থ থাকার জন্য যেমন ব্যালেন্সের প্রয়োজন, তেমনটা পাওয়া যাবে না। ইলেক্ট্রলাইটের অসামঞ্জস্যতা থেকে পেশীর দুর্বলতা ও ব্যথাভাব দেখা দেয়।’