রাত ১:৩১, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







আইন শক্তিশালী হলে এজেন্সিগুলোও কাজ করবে: অর্থমন্ত্রী

পানকৌড়ি নিউজ: ‘অর্থমন্ত্রী বলেছেন, গুজবের কারণে পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না। তাই গুজব বন্ধ করে পুঁজিবাজারকে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্ট আইনটি পুরোপুরি শক্তিশালী করা হবে।’

‘বৃহস্পতিবার পুঁজিবাজার উন্নয়নে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, তাদের (ডিএসই) কমপ্লায়েন্স দুর্বল। গুজব ছড়িয়ে পুঁজিবাজারে কারসাজি করা হচ্ছে।’

’’সরকারের অনেক এজেন্সি থাকার পরও গুজব ছড়ানো হচ্ছে’’ তাহলে এজেন্সিগুলোর কাজ কি- এমন প্রশ্নের জবাবে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন। ’’আইন শক্তিশালী হলে এজেন্সিগুলো কাজ করতে পারবে’’। কিন্তু আইনে দুর্বলতা থাকলে করা যাবে না।’

‘রাজধানীর আগারগাঁও পরিকল্পনা কমিশনে অর্থমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত টানা দু’ঘণ্টা বৈঠক হয়। সেখানে ডিএসই’র পক্ষে পুঁজিবাজার উন্নয়নে উচ্চ পর্যায়ের ক্ষমতা সম্পন্ন কমিটি গঠনসহ ১১ দফা প্রস্তাব দেয়া হয়।’

মন্ত্রী বলেন, ‘পুজিবাজারে আরও একটি গুজব ছিল সরকার ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্যমান কমানো নিয়ে’। কিন্তু টাকার মূল্যমান কমানোর কোনো চিন্তা সরকারের নেই। টাকার মূল্যমান কমানোর প্রয়োজন নেই। ডিসেম্বরে রেমিটেন্সের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪০ শতাংশ। একটি আইটেমে প্রবৃদ্ধি ৪০ শতাংশ রের্কড।’

এটি উদাহরণ হিসেবে আনছি এ জন্য যে, রেমিটেন্স খাতেও টাকার মূল্যমান কমানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এখাতে ২ শতাংশ প্রণোদনা দিয়ে এ অর্জন করা হয়। ফলে কোন খাতে ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্যমান কমানোর কোনো পরিকল্পনা নেই।’

’ব্যাংকিং ফাইন্যান্স ব্যবহারের সুবিধা চেয়েছে ডিএসই’। অন্য ব্যবসার ক্ষেত্রে একজন গ্রাহক ব্যাংকে গিয়ে ঋণ করতে পারে, ঠিক তেমনিভাবে পুঁজিবাজারের ব্যবসায়ীরা যেন একই সুবিধা পায়- এটি তাদের (ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ) দ্বিতীয় প্রস্তাব ছিল। আমরা বলেছি ব্যাংকে যাওয়ার ক্ষেত্রে এই মুহূর্তে কারও কোনো বাধা নিষেধ নেই। এটি ব্যাংক ও গ্রাহকের সম্পর্কের ভিত্তিতে হবে।’

অন্যরা যেভাবে ব্যাংকের ঋণ পায়, একইভাবে পুঁজিবাজারের ব্যবসায়ীরা যেন সে সুবিধা পায়। পুঁজিবাজার বিগত সময়ে সরকারের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে শোধ করেছে। এ রের্কড থেকে মনে হচ্ছে পুঁজিবাজারের অবস্থা ব্যাংকিং জগতে আরও ভাল হবে। ’এ প্রস্তাবও গ্রহণযোগ্য বলে তাদের জানানো হয়েছে।’