বিকাল ৩:৩২, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







পুনর্মিলনীতে এসে স্মৃতিকাতর ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা

পানকৌড়ি নিউজ: রাজপথের সেই সহযাত্রীদের সবাইকে আজ একসঙ্গে পেয়েছি। ‘অতীতের অনেক সুখ-দুঃখের স্মৃতি ফিরে ফিরে আসছে। সবাই সবার বর্তমান অবস্থার খোঁজ-খবর নিচ্ছেন।’

‘আজ পুনর্মিলনীতে সবার একটাই শপথ মুক্তিযুদ্ধের সময় ‘তোমার আমার ঠিকানা; পদ্মা, মেঘনা, যমুনা’ স্লোগান দিয়ে যেভাবে বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলাম, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন সেই পদ্মা মেঘনা যমুনার বাংলাদেশকে সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ গড়ার যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।” ছাত্রলীগের পুনর্মিলনীতে যোগ দিতে আসা সংগঠনের সাবেক সভাপতি বাহাদুর ব্যাপারী উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে এসব কথা বলেন।’

শনিবার (৪ জানুয়ারি) ‘দুপুরে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমও অনেকটা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। তিনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর অনেক ত্যাগী নেতাকর্মীর সম্মিলন ঘটিয়েছে এই পুনর্মিলনী।’

সবার একটা কথা, ছাত্রলীগ অতীতে যেভাবে দেশ গঠনে ভূমিকা পালন করেছে, এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে যেভাবে এগিয়ে নিচ্ছেন, তার পাশে থেকে তার হাত শক্তিশালী করতে হবে। তার উদ্যোগকে সফলতার মুখ দেখাতে নতুনদের সর্বোচ্চ উজাড় করে দিতে হবে।

ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাবেক সভাপতি, ব্যারিস্টার সাজ্জাদ হোসেনও ছাত্রলীগের বর্তমান এই প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ভিশন জাতির সামনে দিয়েছেন, ছাত্রলীগের সবাইকে তা ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাস্তবায়ন করতে হবে।’

‘উন্নত ও সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত থাকতে হবে। আজকের পুনর্মিলনীতে বর্তমানদের পাশাপাশি সাবেক নেতারাও এসেছেন। এটা অভূতপূর্ব মহামিলন। সবার স্মৃতিচারণেই অতীতের সেই সোনালি ভূমিকাগুলোর কথাই উচ্চারিত হচ্ছে। ঘুরেফিরে আসছে রাজপথের সংগ্রামে দিনগুলোর কথা। ছাত্রলীগ রাজপথে বিভিন্ন সময় কঠিন ও কষ্টকর দিন পার করেছে।’

‘আন্দোলনে সংগ্রামে এদেশের মানুষের দাবি প্রতিষ্ঠিত করেছে। এখন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আছে। সরকার বাংলাদেশকে সমৃদ্ধিশালী দেশ গড়ার যে লক্ষ্য হাতে নিয়েছে, ছাত্রলীগের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীকে সে লক্ষ্যের সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করতে হবে।’