সকাল ১০:৪৬, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







নীতি ও আদর্শ ছাড়া কেউ কোনো দিন মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পারে না

পানকৌড়ি নিউজ: ’প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নীতি ও আদর্শ ছাড়া কেউ কোনো দিন মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পারে না । গতকাল শনিবার রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ’আদর্শ ও নীতি ছাড়া কোনো দিন নেতৃত্ব তৈরি হয় না। নীতি ছাড়া কেউ কোনো দিন মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পারে না। জাতিকে কিছু দিতেও পারে না। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের জন্য অবদান রাখতে পেরেছিলেন। কারণ তাঁর মধ্যে নীতি ও আদর্শ ছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’আগামী দিনের নেতৃত্ব যেন প্রজন্মের পর প্রজন্মের একটি ধারাবাহিকতায় আসে। এ নেতৃত্ব যেন ছাত্রলীগের মধ্য দিয়ে তৈরি হয় সে লক্ষ্যে প্রস্তুতি নিতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল, এ কথা উল্লেখ করে বাঙালি জাতির ইতিহাসে ছাত্রলীগের নানা অবদানের কথা শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন তিনি।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, জিয়া, এরশাদ, ’খালেদা জিয়া ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছিলেন। শিক্ষাঙ্গনকে সন্ত্রাসীদের জায়গায় পরিণত করা হয়েছিল। কিন্তু আমরা মনে করি ছাত্ররা আমাদের ভবিষ্যৎ। ভবিষ্যতে তারা দেশকে পরিচালনা করবে। তাদের যদি বিপথে নামানো হয়, রাজনৈতিক উচ্চাভিলাষ চরিতার্থ করার জন্য তাদের ব্যবহার করা হয়, তাহলে তারা দেশকে নেতৃত্ব দেবে কিভাবে?’

শেখ হাসিনা বলেন, ’সততা-আদর্শ ছাড়া সফলতা আসবে না। সাময়িকভাবে নামডাক আসতে পারে, অর্থবিত্ত হতে পারে। কিন্তু দেশের ইতিহাসে মনে রাখার মতো কিছু করতে পারবে না। সারা দেশে একটা সংগঠন হিসেবে ছাত্রলীগের যে ঐতিহ্য ও অবদান সেটা প্রতিটি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীর মনে রাখা উচিত।’

’১৯৫৮ সালে যখন মার্শাল ল দেওয়া হলো, তখন বঙ্গবন্ধু কারাগারে থেকেই সিদ্ধান্ত নিলেন যে, যেভাবেই হোক এই বাংলাকে মুক্ত করতে হবে, স্বাধীন করতে হবে। ১৯৬০ সালে বঙ্গবন্ধু যখন জেল থেকে মুক্তিলাভ করেন তখন শুধু রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল তাই নয়, তখন তাঁর ঢাকার বাইরে যাওয়াও নিষিদ্ধ ছিল। তখন তিনি ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করার নির্দেশনা দিয়ে পদক্ষেপ নেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর প্রথম প্রতিবাদ এই ছাত্রলীগের ছেলেরাই করেছিল’। ছাত্র ইউনিয়নসহ আরো কিছু সংগঠন একসঙ্গে প্রতিবাদ করে। ‘সেই সময় আমরা দুই বোন শরণার্থী হিসেবে বিদেশে ছিলাম, ‘আমাদের দেশে ফিরে আসতে দেওয়ার দাবিও ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে করা হয়’।’