সন্ধ্যা ৭:২৬, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







মার্কিন সেনা সদস্যদের কফিনে ভরে যুক্তরাষ্ট্রে নিতে হবে: হিজবুল্লাহ

পানকৌড়ি নিউজ: ইরানের শীর্ষ জেনারেল ‘কাসেম সোলেমানিকে’ হত্যার প্রতিশোধ নেয়ার দীপ্ত শপথ নিয়েছে লেবাননের হিজবুল্লাহ। ‘মধ্যপ্রাচ্যে অবস্থান করা মার্কিন সেনা সদস্যদের কফিনে ভরে যুক্তরাষ্ট্রে নিতে হবে বলে হুমকি দিয়েছেন সংগঠনটির প্রধান সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ’। রোববার লেবাননে স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে তিনি এ হুঙ্কার দেন।

নাসরুল্লাহ বলেন, ‘জেনারেল কাসেম সোলাইমানির হত্যার বদলা নেয়ার দায় কেবল ইরানের নয়, তাদের মিত্রদের ওপরেও বর্তায়’ আমাদের দেশগুলোতে মোতায়েন মার্কিন সামরিক ঘাঁটি, নৌ-জাহাজ এবং প্রত্যেক মার্কিন কর্মকর্তা ও সেনার কাছ থেকে সোলাইমানি হত্যার হিসাব পাই পাই করে বুঝে নেয়া হবে। এ হত্যার ন্যায্য বদলা নেয়া হবে।

‘যখন কফিনে করে মার্কিন সেনা ও কর্মকর্তাদের লাশ আমেরিকায় পৌঁছাবে, তখন ট্রাম্প ও তার প্রশাসন অনুধাবন করতে পারবে যে, ‘সত্যিই মধ্যপ্রাচ্য বেহাত হয়ে গেছে, আর (২০২০ সালের) নির্বাচনেও তাদের ভরাডুবি হবে’-যোগ করেন নাসরুল্লাহ’।

‘১৯৮২ সালে ইরানের বিপ্লবী গার্ড লেবাননে শিয়াপন্থী হিজবুল্লাহকে সংগঠিত করে। তারপর থেকেই এ গোষ্ঠী আমেরিকা ও ইসরাইলের বিরুদ্ধে ইরানের সঙ্গে কাধে কাধ মিলিয়ে লড়াই চালিয়ে আসছে’।

১৯৮৩ সালে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালিয়ে লেবাননের বৈরুতে মার্কিন সামুদ্রিক সদর দফতর ধ্বংস করে হিজবুল্লাহ। ’ওই হামলায় ২৪১ কর্মকর্তা নিহত হন। একই বছর মার্কিন দূতাবাসেও আত্মঘাতী হামলা চালায় তারা, পরে ওই বছরই লেবানন থেকে মার্কিন সেনা সরিয়ে নেয়া হয়’।

সেই ইতিহাস সামনে এনে নাসরুল্লাহ বলেন, ’পূর্বের যে কোনো সময়ের চেয়ে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে সম্ভাব্য আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীর সংখ্যা এখন বেশি’ সোলাইমানি ও অন্যদের হত্যার মধ্য দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের ইতিহাসে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছে।

এ অঞ্চলে মোতায়েন মার্কিন সেনাদের, ওপর আমাদের হামলা তাদের পূর্বের মতই বিভীষিকা পৌঁছে দেবে। অপদস্থ আর পরাজিত হয়ে সরে যেতে বাধ্য হবে তারা। আমাদেরকে অবশ্যই কাসেমি হত্যার বদলা নিতে হবে’।