সন্ধ্যা ৬:৫৫, ৭ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







ধর্ষণের স্থান থেকে ছাত্রীটির বই, ঘড়ি, চাবির রিং,ইনহেলার উদ্ধার

পানকৌড়ি নিউজ: ‘ধর্ষকের হাত থেকে নিজেকে রক্ষায় আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। নিজেকে বাঁচানোর সেই চিত্র ঘটনাস্থলে পাওয়া গেছে। সেখানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও ব্যবহৃত সামগ্রী’।

সোমবার (৬ জানুয়ারি) ‘দুপুরে ঘটনাস্থল থেকে পুলি’শের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ১৫ ধরনের আলামত সংগ্রহ ক’রেছে যার বেশিরভাগই ওই শিক্ষার্থীর ব্যবহৃত জিনিসপত্র। কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতা’লের প্রধান ফটক থেকে উত্তরার দিক ১০০ গজ যেতে’ই ফুটপাতের সৌন্দর্য বর্ধনের ফুল গা’ছের ঝোপে তাকে জোর করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেখানে নিজেকে বাঁচাতে ধর্ষকের সঙ্গে তার ধস্তাধস্তি হয় বলে ঘটনাস্থল দেখে ধারণা কর’ছে পুলিশ। ব্যস্ততম সড়ক হলেও রাতে এই ফুট’পাতে পথচা’রীদের তেমন যাতায়াত থাকে না’।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশা’ন বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সুদীপ চক্রব’র্তী বলেন, ‘সড়কটি ব্যস্ততম হলেও এই ফুট’পাতে মানুষের যাতা’য়াত কম থাকে। এই সড়কে গাড়ি চলাচল করে বেশি। ভিকটিম আমা’দের কাছে একজনের কথা বলেছেন। আম’রা আলামত সংগ্রহ করেছি।

ক্যান্টনমেন্ট থানা পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘ভিকটিমের শরীরে জখম রয়েছে। নিজেকে রক্ষা করতে তিনি চেষ্টা করেছিলেন।’

সরেজমিনে দেখা গেছে, ‘শিক্ষার্থীর ব্যবহৃত হাতঘড়ি, চাবির রিং, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন কাগজপত্র, জুতা, ফাইল সেখানে পড়ে আছে। এছাড়া তার ব্যবহৃত ইনহেলার ও ওষুধসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। ঘটনাস্থলে কালো একটি জিন্স প্যান্ট পড়েছিল। এছাড়া ছয়টি ফেন্সিডিলের বোতল সেখানে পড়েছিল যেগুলো সাস্প্রতিক ও পুরানো বলে মনে করছেন আলামত সংগ্রহকারী পুলিশ কর্মকর্তারা।
সিআইডির এক কর্মকর্তা বলেন, ‘ঘটনাস্থলে ধস্তাধস্তির চিহ্ন রয়েছে’।