সকাল ৭:৩৩, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







কেমন গেলো সরকারের পথচলার এক বছর

পানকৌড়ি নিউজ: ‘২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অংশগ্রহণমূল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিশাল বিজয়ের পর টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসীন হয় আওয়ামী লীগ। এর এক সপ্তাহ পর, গত বছরের ৭ জানুয়ারি সরকার গঠন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।’

‘সরকারের যাত্রার শুরুতেই চমক উপহার দেন টানা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রীর আসনে আসীন শেখ হাসিনা। মন্ত্রিসভা গঠনে আগের দুবারের ধারাবাহিকতা থেকে বেরিয়ে আসেন তিনি; হেভিওয়েট প্রায় ২৩ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ছিটকে পড়েন মন্ত্রীসভা থেকে। সেখানে স্থান হয় অপেক্ষাকৃত নতুনদের। এতে করে একটি বার্তা স্পষ্ট হয়ে যায় যে, এবার তার নেতৃত্বাধীন সরকারের পথচলায়ও থাকবে নতুনত্ব।’

‘একাদশ নির্বাচনোত্তর ৪৮ সদস্যের মন্ত্রিসভা নিয়ে গঠিত সেই সরকারের পথচলার এক বছর পূর্ণ হলো আজ ৭ জানুয়ারি। সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন এসে যায়, সরকার গঠনের সময় যে বার্তা উঠে এসেছিল, তা কতটুকু বাস্তবতা পেয়েছে? মন্ত্রিসভা গঠনের মতো সরকারের কাজেও নতুনত্ব এসেছে কি? সরকার কি সচেষ্ট ছিল ক্ষমতাসীন দলে দীর্ঘদিন ধরে চর্চিত অচলায়তনগুলো থেকে বেরিয়ে আসতে এবং দলীয় দৃষ্টিভঙ্গির ঊর্ধ্বে থাকতে’?

‘সরকারের এক বছরে দৃশ্যমান হয়েছে মেট্রোরেল প্রকল্প; প্রমত্তা পদ্মার বুকে দৃশ্যমান হয়েছে নির্মিতব্য সেতুর তিন কিলোমিটারেরও বেশি অংশ। তবে এসবের চেয়েও বেশি প্রশংসিত হয়েছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের অটল অবস্থান এবং দল-মত নির্বিশেষে দুর্নীতি রোধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি। বিশ্লেষকরা মনে করেন, আরও বেশকিছু ক্ষেত্রে সরকার সফলতার দিকেই হাঁটছে।’

‘এর পাশাপাশি নিত্যপণ্যের মূল্যে ঊর্ধ্বগতির লাগাম নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা; ব্যাংক খাতে আর্থিক সংকট, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ক্রয় খাতে সংশ্লিষ্টদের ‘বালিশকাণ্ড’, দেশজুড়ে ডেঙ্গুর প্রকোপ ও তা যথার্থভাবে মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যর্থতা এবং সর্বশেষ বিজয় দিবস উদযাপনের প্রাক্কালে রাজাকারের তালিকা প্রকাশের পর এ নিয়ে তোলপাড়- ইত্যাদি বিষয় সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে।’

বিশ্লেষকরা মনে করেন, ‘এসব কাণ্ড সরকারের সফেদ সফলতায় কালো কালি মেখে দিলেও সব মিলিয়ে দেশ পরিচালনায় ইতিবাচক পথেই হাঁটছে সরকার; দেশের উন্নয়নে সজাগ ও সচেষ্ট। এরই ধারাবাহিকতায় ‘মন্ত্রিত্বের পারফরমেন্স মূল্যায়ন’ করে খুব শিগগিরই মন্ত্রিসভায় রদবদল আনতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।’

‘রাজনীতিবিষয়ক বিশ্লেষকরা বলছেন, সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড- ঢাকা পড়েছে দলীয় নেতাকর্মী ও কর্মকর্তাদের দুর্নীতির কারণে। বালিশকাণ্ডই শুধু নয়, ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পর্দা কেনায় বিস্ময়কর দুর্নীতির খবরও সরকারের অর্জনকে ম্লান করেছে। পুলিশের কর্মকর্তা কিংবা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কর্মকর্তাদের ঘুষ লেনদেনের ঘটনা যখন প্রকাশ হয়, তখন সরকারকে খুব বিব্রতই হতে হয়। যদিও এসব কাণ্ডেসরকার কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। পুলিশের ডিআইজি মিজানুর রহমান ও দুদকের পরিচালক এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে আইনি পদক্ষেপ চলমান।’

‘এ ছাড়া ফেনীর আলোচিত নুসরাত হত্যার ঘটনায় দ্রুততম সময়ে’র মধ্যে বিচার শেষ করে সরকার বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে। ঢাকায় ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান এবং যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে বহিষ্কারের ঘটনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতিবিরোধী অটল অবস্থান জানান দিয়েছে।’

‘ক্যাসিনোকাণ্ডে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল হোসেন সম্রাট ও সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদকেও গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এসব ঘটনা ইতিবাচকভাবেই নিয়েছে দেশের মানুষ। তবে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের ওপর বারবার হামলার ঘটনাকে সাধারণ মানুষ ভালোভাবে নেয়নি। নুরের ওপর হামলার ঘটনায় সরকারও বেশ বিব্রত।’

‘দেশের তৈরি পোশাক, চামড়া ও প্লাস্টিকসহ বড় বড় খাতে রপ্তানি ও রপ্তানি আয় কমেছে গত এক বছরে। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের ৬ মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে রপ্তানি কমেছে ১২ দশমিক ৭৭ শতাংশ। অর্জিত আয় আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৫ দশমিক ৮৪ শতাংশ কম। তবে আলোচিত সময়ে পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি বেড়েছে। গত রবিবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।’