বিকাল ৩:৫৩, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







বঙ্গবন্ধু মুক্ত: ৮ জানুয়ারি সবার চোখ ছিল লন্ডনে

পানকৌড়ি নিউজ: ’দীর্ঘ ৯ মাস কারাবাসের পর ১৯৭২ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দেয় পাকিস্তান সরকার। পাকিস্তানের ইচ্ছাতেই তাকে পাঠানো হয় লন্ডনে। এ খবরে বঙ্গবন্ধুর পরিবার, দেশের আপামর জনসাধারণ ও বিশ্ব নেতৃত্বসহ সবার চোখ ছিল তখন লন্ডনে’।

বঙ্গবন্ধু হিথ্রু বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করলেও সেখানে কোনও প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে চাননি। ১৯৭২ সালের ৯ জানুয়ারি দৈনিক বাংলার সংবাদ বলছে, ’বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের বলেন। ‘আপনারা দেখতেই পাচ্ছেন আমি সুস্থ আছি, বেঁচে আছি। এ মুহূর্তে আপনারা শুধু আমাকে দেখুন, কিছু শোনার আশা করবেন না। তাই এখন আমি আর বেশি কিছু বলতে চাই না। সম্ভবত আজকের পরে একটা বিবৃতি দিতে পারি।’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাওয়ালপিন্ডি থেকে পাকিস্তান সরকারের চার্টার করা পিআইএ-এর একটি বিশেষ বিমানে লন্ডনের উদ্দেশে রওনা হন, রাউয়ালপিন্ডি ত্যাগের ১০ ঘণ্টা পর ৮ জানুয়ারি গ্রিনিচ সময় ৬টা ৩৬ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় ১২টা ৩৬ মিনিট) হিথ্রু বিমানবন্দরে পৌঁছান। লন্ডনের উদ্দেশে রওনা হওয়ার সাত ঘণ্টা পর বিষয়টি জানাজানি হয় বলে সেই সময়ের পত্রিকাগুলো সংবাদ প্রকাশ করে।

বঙ্গবন্ধু লন্ডনে পৌঁছে তিন ঘণ্টা বিমানবন্দরে অবস্থান করেন। ’পাকিস্তান ত্যাগের সময় তার গন্তব্য নিয়ে কিছুই জানানো হয়নি। এটুকুই বলা হয় যে, বঙ্গবন্ধু বিমানে যে স্থানে গমন করেছেন, সেখানেই তিনি তার পরবর্তী কর্মসূচি জানাবেন’।

‘এসময় পরনে ছিল টাইবিহীন সাদা শার্ট, ধুসর স্যুট ও ওভারকোট। তিন ঘণ্টা পর বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর থেকে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে ওয়েস্ট অ্যান্ড এর ক্লারিজ হোটেলের উদ্দেশে রওনা দেন। গাড়িতে ওঠার সময় তিনি সামনে বসতে পারেন কিনা জিজ্ঞাসা করলে কর্মকর্তারা বলেন, অবশ্যই। এসময় তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনও কথা বলেননি’।

ইউএনআই পরিবেশিত নয়াদিল্লির খবরে বলা হয়, ‘মুক্তির পর প্রথম বিবৃতিতেই বঙ্গবন্ধু নিজ ইচ্ছায় লন্ডনে গিয়েছেন বলে দেওয়া পাকিস্তানের বক্তব্যের বিরোধিতা করেন। সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তাকে ব্রিটিশ রাজধানীতে পাকিস্তানের সিদ্ধান্তেরই পাঠানো হয়েছে। বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘আমি বন্দি ছিলাম, পাকিস্তান সরকারের ইচ্ছে অনুযায়ী এই সিদ্ধান্ত হয়েছে, আমার সিদ্ধান্তে নয়।’ অথচ নয়াদিল্লি থেকে পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু স্বেচ্ছায় লন্ডন ভ্রমণের অভিপ্রায় জানান’।

৯ জানয়ারি ১৯৭২ ডেইলি অবজারভারের খবর

পরবর্তীতে হোটেলে বঙ্গবন্ধু ‘শেখ মুজিবুর রহমান সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। তিনি বলেন, ‘আমি এখানে আর এক মুহূর্ত থাকতে রাজি নই। আমি আমার জনগণের কাছে ফিরে যেতে চাই।’ বঙ্গবন্ধু সাংবাদিকদের জানান, ‘তিনি আগামীকাল বা পরের দিন ঢাকা ফিরবেন বলে আশা করছেন’।

‘বাংলাদেশ শিগগির জাতিসংঘে সদস্য পদের জন্য অনুরোধ করবে। বাংলাদেশের দাবিকে সমর্থনের জন্য ভারত, সোভিয়েত ইউনিয়ন, পোল্যান্ড, ফ্রান্সকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন অবিসংবাদিত সত্য এবং এদেশকে বিশ্বের স্বীকৃতি দিতে হবে।’