সকাল ১১:৪৬, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







ইরান কেন সামরিকভাবে বিপজ্জনক

পানকৌড়ি ডেস্ক: ‘ইরানের কাছে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিপক্ষের চেয়েও বেশি কিছু। কিন্তু ইরানিরা জানে প্রথাগত যুদ্ধে এই শত্রুকে হারাতে পারবে না তারা। অস্ত্রশস্ত্রে তারা যুক্তরাষ্ট্রের কাছে নগণ্যই বলতে হবে। ইরানের লক্ষ্য তাই শত্রুর সর্বোচ্চ ক্ষতি করা, জেতা নয়।’

‘সরাসরি যুদ্ধে জিততে চাওয়া প্রতিপক্ষের চেয়ে গেরিলা ধাঁচের লড়াইয়ে কেবল শহীদ হতে চাওয়া শত্রু বেশি হুমকিস্বরূপ। যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ইরান সে রকম। কয়েক দশক ধরে ইরান সেভাবেই যুদ্ধসম্পদ ও সমরকৌশল বিন্যস্ত করেছে।’

‘ইতিমধ্যে ইরাকের পার্লামেন্টে মার্কিন সেনাদের ইরাক থেকে বহিষ্কারের জন্য একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। এই প্রস্তাব এখন সরকার কার্যকর করা মানে ইরাকে সব ধরনের মার্কিন সামরিক উপস্থিতি ও স্থাপনা অবৈধ হয়ে যাওয়া। যুক্তরাষ্ট্র যদি ইরাক না-ও ছাড়ে এখন, এ রকম অবৈধ নিশানায় ইরাকিদের যেকোনো প্রতিরোধ তখন আইনি বৈধতা পেয়ে যাবে। অর্থাৎ গেরিলা আক্রমণের ক্ষেত্র প্রস্তুত হয়ে যাওয়া।’

‘কেবল বন্ধুদেশ সিরিয়াকে রক্ষার যুদ্ধে ইরানের আড়াই হাজার যোদ্ধা প্রাণ দিয়েছেন গত নয় বছরে, যাঁদের মধ্যে আছেন তাদের শ্রেষ্ঠ জেনারেলদের অন্তত ১০ জন। আহতের সংখ্যা এর প্রায় পাঁচ গুণ। দেশের বাইরে যুদ্ধের বহু ময়দানে এভাবে ইরান তার সেরা জনবল ব্যয় করে যাচ্ছে রাজনৈতিক ও আদর্শিক স্বার্থে।’

দেশ, ‘ধর্ম ও রাজনৈতিক বিশ্বাসের জন্য আত্মত্যাগ ইরানি সংস্কৃতির বড় স্তম্ভ। এই সংস্কৃতির ওপরই দাঁড়িয়ে আছে তাদের যোদ্ধামন। প্রথাগত সমরবিদদের জন্য তাই ইরান দুর্বোধ্য। আবার অপ্রথাগত যুদ্ধবিদ্যার জন্য ইরান বিস্ময়কর। জেনারেল সোলাইমানি ছিলেন ওই বিস্ময়ের বড় এক ভরকেন্দ্র। সে কারণে ইরানের তরফ থেকে তাঁর মৃত্যু-পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই বিশ্বজুড়ে।’

ইরান যুদ্ধে লিপ্ত হবে, যুদ্ধ ঘোষণা করবে না
‘সোলাইমানির মৃত্যুর আগে থেকে যুক্তরাষ্ট্র-ইরান ছায়াযুদ্ধে লিপ্ত। ইরানের সামরিক সামর্থ্যের আন্তর্জাতিক প্রধান তিনি। দেশের বাইরে ইরানের তাবৎ অপারেশন তাঁর মাধ্যমেই হয়েছে। সুলাইমানি নিজে ময়দানে দাঁড়িয়ে সব যুদ্ধে শরিক ছিলেন। ফলে এই জেনারেলকে হারানো ইরানের কাছে বিস্ময়কর ছিল না।’

‘যুক্তরাষ্ট্রকেও এই খুনের জন্য বাড়তি কৈফিয়ত দেওয়ার কিছু নেই। কিন্তু ৩ জানুয়ারি পরিস্থিতিতে গুণগত পরিবর্তন ঘটিয়েছে। ইরানকে এখন বড় আকারে বদলা নিতে হবে। এটা প্রায় নিশ্চিত, সেই বদলা হবে অপ্রচলিত পথে। মোটেই তাৎক্ষণিক হবে না সেটা। নিশ্চিতভাবে যুক্তরাষ্ট্র-ইরান ছায়াযুদ্ধের তীব্রতা নতুন মাত্রায় যাবে আগামী দিনে। তার উত্তাপ ছড়াবে মধ্যপ্রাচ্যের বাইরে মধ্য এশিয়া ও আফ্রিকা পর্যন্ত।’

‘ইরানিরা মনে করে, ‘সোলাইমানি দেশ ও ধর্মের জন্য ‘শহীদ’। সে কারণেই সোলাইমানির জন্যও বহু ইরানি রক্ত দিতে তৈরি। যাঁদের সামরিক প্রশিক্ষণ রয়েছে, একই সঙ্গে ফেদাইন (যে খোদার জন্য জীবন দেয়) ও মুজাহিদীন (যে জিহাদে অংশ নেয়) মনস্তত্ত্ব।’