রাত ১:৩০, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







লন্ডনে দেশের কথা শুনেই চোখে জল বঙ্গবন্ধুর,

পানকৌড়ি নিউজ: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও প্রবাসী সাংবাদিকের সঙ্গে দিনভর সাক্ষাৎ আর দলের নেতাকর্মী ও পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে দেশের খবর নিয়ে লন্ডন থেকে স্বাধীন বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭২ সালের ৯ জানুয়ারি তার আশেপাশে যারা ছিলেন তারা বলছেন, যতবারই তিনি দেশের মানুষের কথা শুনেছেন, দেশে ঘটে যাওয়া নিপীড়নের কথা শুনেছেন, তার চোখ ভিজে এসেছে।

‘তিনি দেশে ফেরার জন্য ব্যাকুল হয়ে পড়েন। যতটা সময় তিনি লন্ডনে ছিলেন ততক্ষণই তার হোটেলের সামনে হাজারও বাংলাদেশি শীত উপেক্ষা করে দাঁড়িয়ে ছিলেন বঙ্গবন্ধুকে এক পলক দেখার জন্য। লন্ডনের ক্লারিজ হোটেলের বাইরে তখন কেবল ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগানের ধ্বনি।’

এইদিন লন্ডনে হোটেলে আসেন তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিথ, বিভিন্ন রাষ্ট্রদূতসহ বাংলাদেশের কয়েকজন নেতা। বঙ্গবন্ধু নয়াদিল্লি হয়ে দেশে ফিরবেন−ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে দীর্ঘ ফোনালাপে তা নির্ধারিত হয় বলে জানান ভারতীয় কূটনীতিক শশাঙ্ক শেখর ব্যানার্জি। আর দেশে তখন চলছে বঙ্গবন্ধুকে বরণের প্রস্তুতি। ১০ জানুয়ারি বেলা ৩টায় তার ঢাকায় ফেরার কথা।
লন্ডনে বঙ্গবন্ধু

লন্ডনে ফেরার দিন

‘সে সময় লন্ডনে ছিলেন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক। লন্ডনের দিনটি বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত কেটেছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ১৫ থেকে ২০ জন হোটেলে ঢোকার সুযোগ পেয়েছিলাম। প্রথমে অবাক হলাম, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিথ হোটেলে চলে এলেন। সেটি স্পষ্টতই ইংল্যান্ডের প্রটোকলের বিচ্যুতি।’

‘ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তৃতীয় বিশ্বের নেতাকে দেখতে হোটেলে চলে আসবেন এটা অতীতে ঘটেনি, ভবিষ্যতেও ঘটবে না,এটা বঙ্গবন্ধু বলেই সম্ভব হয়েছে। হ্যারল উইলশন সে সময়ের বিরোধী দলের নেতা, তিনিও এলেন। হাউস অব কমন্স ও লর্ডস-এর অনেকে চলে এলেন। এ দৃশ্যগুলো দেখে আমি অবাক হয়েছি। কারণ বাংলাদেশ তখন স্বীকৃত রাষ্ট্রও নয়।’