সন্ধ্যা ৭:৪৯, ৭ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







আমি মেঝেতে ঘুমাবো, আর কোথাও যাবো না

‘ঢাকা অবতরণের ১০ মিনিট আগে বিমানবালা মিলার এসে বঙ্গবন্ধুকে বলেন, ‘ইচ্ছে করলে শেখ মুজিবুর রহমান সাহেব ঢাকা দেখতে পারেন।’ কিন্তু অনেক স্মৃতির ভীড়ে তিনি সেই কথায় সাড়া দেননি।’

‘এরপর দিল্লি থেকে তাঁর সফরসঙ্গী বাসসের সাংবাদিক আতাউস সামাদ বঙ্গবন্ধুকে বলেন,  ‘আপনি ঢাকা দেখতে পারেন।’ সঙ্গে সঙ্গে তিনি বিমান থেকে প্রিয় শহর ঢাকাকে দেখতে থাকেন। সাংবাদিক আতাউস সামাদ পরে তার প্রতিবেদনে লেখেন— তিনি আমাদের দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘আমি ঢাকায়। আমি আমার জনগণের মধ্যে ফিরে এসেছি।’

‘বসে পড়ে আবারও তিনি বলতে থাকেন, ‘আজ  রাতে আমি আমার বাড়িতে বাস করবো। আমি মেঝেতে ঘুমাবো,কিন্তু আর কোথাও যাবো না।’ বলতে বলতে তাঁর চোখ অশ্রুসজল হয়ে ওঠে।’

বাসস পরিবেশিত এই সংবাদটি আতাউস সামাদের বরাত দিয়ে ১১ জানুয়ারি প্রকাশ করে দৈনিক বাংলা।

‘প্রতিবেদক লিখেছেন, ‘সাংবাদিকরা বহু রাজনীতিককে দেখে থাকেন। কিন্তু সাংবাদিকরা রাজনীতিকদের সাধারণ মানুষ হিসেবে দেখার সুযোগ কমই পেয়ে থাকেন। দিল্লি থেকে ঢাকা তিনিই (আতাউস সামাদ) একমাত্র সাংবাদিক সফরসঙ্গী ছিলেন। বিমানে উঠেই বাকরুদ্ধ কণ্ঠে বঙ্গবন্ধু জিজ্ঞেসা করেন, ‘তুমি কি এখনও বেঁচে আছো’

দিল্লি থেকে ঢাকা ১৪২ মিনিট সময় বঙ্গবন্ধু সহকর্মী ও বন্ধুদের খোঁজ করেন। আতাউস সামাদ লিখছেন, ‘যশোরের মশিউর রহমানকে হত্যার কথা শুনে ভেঙে পড়েন। তিনি আমার পেশায় নিয়োজিত সুপরিচিত নামগুলো সম্পর্কে আবারও প্রশ্ন করেন। আমি জনাব শহীদুল্লাহ কায়সার, সিরাজউদ্দীন হোসেন, ডা. আবুল খয়ের, নাজমুল হক, নিজাম উদ্দীন, ডা. ফজলে রাব্বী, আহাদ, সায়দুল হাসান, মামুন মাহমুদ, ডা. আলীম চৌধুরী— সবাই চিরদিনের জন্য চলে গেছেন, অথবা তারা চলে গেছেন বলে অনুমান করা হচ্ছে বলে জানালাম। প্রত্যেকের নাম বলার সঙ্গে সঙ্গে তার মুখ বিষণ্ন ও বেদনায় ভারাক্রান্ত হয়ে পড়ে।’

‘এর কিছুক্ষণ পর বঙ্গবন্ধু আপন  মনে ‘ছায়া সুনিবিড় শান্তির নীড় ছোট ছোট গ্রামগুলো’ কবিতাটা নিজে নিজে আওড়াতে থাকেন। ইয়াহিয়ার সামরিক ট্রাইব্যুনালকে তিনি কী বলেছিলেন সে কথাও হচ্ছিল— ‘আমি তাদের বলেছি যে, আমি তোমাদের কাছে বিচার চাই না। কারণ,  তোমরা একা নও। আমি সর্বশক্তিমানের আশির্বাদ চাই। আমি আল্লাহ বিশ্বাস করি। আমার কোনও ভয় নেই।’