বিকাল ৪:১১, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







নেতা আসছেন, বিজয়ের আনন্দ-আবেগে পূর্ণ রেসকোর্স

‘অনেক প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে ১০ জানুয়ারি দেশের মাটিতে পা রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সারাদেশ থেকে মানুষ ঢাকায় আসেন প্রিয় নেতাকে একবার চোখের দেখা দেখতে। সকাল থেকেই নেতার আগমনীতে সেজে ওঠে ঢাকা। দীর্ঘ কারাবাসের পর স্বাধীন দেশে ফেরার আগে লন্ডন থেকে ভারতে যাত্রাবিরতি করে তিনি সেখানকার রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে জাতির জনকের মর্যাদাও পান।’

‘ঢাকায় নেমে বিমানবন্দর থেকে রেসকোর্স ময়দানে যেতে সময় লাগে ১৩০ মিনিট। পথে পথে নেমে আসে পুরো দেশ। গাছের ডালে, ভবনের বারান্দায়, রাস্তায় এতোই ভিড় যে, গাড়ি চালানো ছিল দায়।’

দৈনিক বাংলায় পরের দিন প্রকাশিত সংবাদ বলছে, ‘বহরের প্রথমে পাইলট কার,তার পেছনে দুটো জিপ,তার পেছনে সাংবাদিকদের ট্রাক, ঠিক তারই পেছনে বঙ্গবন্ধুর সুসজ্জিত ট্রাক। নীল ও লাল রঙের কাপড়ের ঘের দেওয়া সেই ট্রাকের ওপরে দাঁড়িয়ে রয়েছেন বঙ্গবন্ধু। পরনে কালো প্যান্ট কালো কোট। ক্লান্ত দেহ অথচ সজীব মুখ। চলন্ত ট্রাকের ওপর তার দুপাশে রয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদ।’

ফুলে ফুলে ছেয়ে যাওয়া ট্রাকে করে রেসকোর্সে নেমে ১৯৭১ এর ৭ মার্চের ভাষণের ধারাবাহিকতাতেই যেন তিনি ঘোষণা করেন, ‘বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে এবং স্বাধীন থাকবে। এখনও ষড়যন্ত্র চলছে, কিন্তু একজন বাঙালি জীবিত থাকা পর্যন্ত বাংলাদেশ স্বাধীন থাকবে।’ ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে বিশাল জনসমুদ্রকে আবারও ডাক দেন তিনি— ‘ঘরে ঘরে সতর্ক থাকুন, ঐক্যবদ্ধ থাকুন।’

পাকিস্তানের ভুট্টোকে উদ্দেশ করে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘আপনারা সুখে থাকুন, শান্তিতে থাকুন। আমরাও আমাদের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে নিয়ে শান্তিতে থাকতে বদ্ধ পরিকর। ভুট্টো সাহেব অনুরোধ করেছিলেন কোনোরূপ একটা যোগসূত্র রাখতে। কিন্তু আর নয়। এবার তারা শান্তিতে থাকুন।’ বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে অংশগ্রহণকারী আপামর জনতাকে বঙ্গবন্ধু পরম কৃতজ্ঞতার সঙ্গে সালাম জানান। তিনি বলেন, ‘আমি সালাম জানাই মুক্তি বাহিনীকে, গেরিলা বাহিনীকে, কর্মী বাহিনীকে। আমি সালাম জানাই সংগ্রামী শ্রমিক শ্রেণিকে, কুষককুলকে, বুদ্ধিজীবীদের।’