বিকাল ৪:৩৭, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







খাটের নিচে চারটি ট্রাভেল ব্যাগে লুকানো ছিল ঘুষের পৌনে দুই কোটি টাকা

‘পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের কার্যালয় ও বাসায় অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা টাকাবিকাল ৪টার দিকে ১০৬ নম্বরে কল করে জানানো হয়, এক কর্মকর্তার ঘুষের বিপুল টাকার সন্ধান মিলবে। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) হটলাইনে এই খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঢাকায় যোগাযোগ করে অভিযানের অনুমোদন চান কর্মকর্তারা।’

‘লিখিত অনুমোদন দেওয়া হলে ৪৫ মিনিটের মধ্যে অভিযানে চলে যান তারা। প্রথমে অভিযান চালানো হয় দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের কার্যালয়ে। আলমিরা, ড্রয়ার ও টেবিলের পাশে খুঁজে কিছু পাওয়া যায়নি। এরপর ওই কর্মকর্তার সরকারি বাসভবনে তল্লাশি চালানো হয়। সেখানে খাটের নিচে ও ময়লার পাশে মেলে টাকাভর্তি চারটি ট্রাভেল ব্যাগ। ১ কোটি ৮৫ লাখ ২৫ হাজার টাকা মেলে সেগুলোতে।’

পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের কার্যালয় ও বাসায় অভিযান

‘দিনাজপুরে দুদকের সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আবু হেনা মো. আশিকুর রহমান এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘মূলত দুদকের হটলাইনে অভিযোগ পেয়েই আমরা এই অভিযান চালাই। তাৎক্ষণিকভাবে অভিযান চালানোর কারণে ওই কর্মকর্তার ঘুষের টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়। শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে ফোন পেয়ে মাত্র ৪৫ মিনিটের মধ্যে অনুমোদন নিয়ে অভিযান শুরু হয়। মোট ১ কোটি ৮৫ লাখ ২৫ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।’

এই কর্মকর্তা জানান, ‘পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের বাসায় কৌশলে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল ঘুষের টাকাগুলো। খাটের নিচে অন্যান্য কাগজপত্রের সঙ্গে তিনটি ট্রাভেল ব্যাগ রাখা ছিল। আরেকটি ব্যাগ ছিল পাশেই ময়লা-আবর্জনার সঙ্গে। দেখে যাতে কাগজপত্র আর আবর্জনার স্তূপ মনে হয়, সেখাবেই লুকানো হয়েছিল টাকাগুলো।’