রাত ৩:২৪, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







ঘুষ, দুর্নীতির পৌনে দুই কোটি টাকা বিদেশে পাচার করতে চেয়েছিলেন তাজুল

সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প থেকে আত্মসাৎ করা টাকা অফিস ও বাসায় রেখেছিলেন দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) তাজুল ইসলাম। চার বছর ধরে ঘুষ, দুর্নীতি আর অনিয়মের মাধ্যমে অর্জিত ওই টাকার পরিমাণ এক কোটি ৮৫ লাখ ২৫ হাজার। এই টাকা বিদেশে পাচারের পরিকল্পনা করছিলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) ‘বিকালে গ্রেফতার হওয়া তাজুল সম্পর্কে এসব তথ্য জানান দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয় দিনাজপুরের উপপরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান।’

‘তবে কোন দেশে টাকা পাচারের উদ্যোগ নিয়েছিলেন তাজুল,সে বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে পারেননি দুদক কর্মকর্তা। শুক্রবার (১০ জানুয়ারি)সকালে আশিকুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মানিলন্ডারিংয়ের বিষয়টি স্পষ্ট। তবে পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আগে এ বিষয়ে এখনই বিস্তারিত কিছু বলা যাবে না।’

‘দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘পিআইও তাজুল ইসলাম তার অফিস ও বাসা থেকে উদ্ধার হওয়া টাকার উৎস জানাতে পারেননি। একজন পিআইও’র পক্ষে ঘুষ, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার ছাড়া এই টাকা আয় করা সম্ভব নয়।’

দুদক সূত্র জানায়, ‘তাজুল কীভাবে, কার মাধ্যমে বিদেশে টাকা পাচারের উদ্যোগ নিয়েছিলেন এবং তার আত্মীয়দের মধ্যে কারা বিদেশে আছেন, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। চাকরি জীবনের শুরুতে তাজুল যেখানে কর্মরত ছিলেন সেই জায়গাতেও দুর্নীতি হয়েছিল কিনা, তাও খোঁজ নেওয়া হচ্ছে বলে জানান দুদকের এক কর্মকর্তা।’

জানা গেছে, ‘তাজুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট সদর উপজেলায়। তার বাবার নাম আব্দুর রাজ্জাক। ২০১১ সালে চাকরি জীবনে প্রবেশ করেন তিনি। আর পার্বতীপুর উপজেলায় পিআইও হিসেবে যোগ দেন ২০১৬ সালে। এর আগে ফুলবাড়ী উপজেলায় কর্মরত ছিলেন।’

‘পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের কার্যালয় ও বাসায় অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা টাকা’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ‘গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্প (টিআর), গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্থার প্রকল্প (কাবিটা), অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি) ও গ্রামীণ উন্নয়নের ক্ষেত্রে কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির টাকাই মূলত আত্মসাৎ করেন তাজুল।’