রাত ১:১৮, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







আলোর অবয়বে ফিরলেন মুজিব, কাঁদলেন শেখ হাসিনা

রানওয়েতে এসে দাঁড়ালো বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সি-১৩০ জে মডেলের বিমান। ‘খুললো বিমানটির দরজা। আর দরজায় আলোর অবয়বে যেন চিরচেনা হাসি নিয়ে হাত উঁচু করে দাঁড়ালেন বঙ্গবন্ধু। পরক্ষণেই সেই সবুজ আলোর অবয়বে লালগালিচা বেয়ে জনতার মুজিব নেমে এলেন স্বদেশের মাটিতে।’

‘মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বাবার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সেই মুহূর্তের এমন প্রতীকী মঞ্চায়ন দেখে কেঁদে ফেলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন তার বোন শেখ রেহানাও।’

শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) ‘রাজধানীর তেজগাঁও জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার পর তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সেই মুহূর্তকে স্মরণ করে এমন আয়োজন এক আবেগঘন পরিস্থিতির সৃষ্টি করে।’

‘প্রতীকী আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর আলোকমূর্তি লালগালিচায় পা রাখতেই ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে জাতির পিতাকে বরণ করে নেয়া হয় স্বদেশের মাটিতে। এসময় চারদিকে ধ্বনিত হয় ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান। বঙ্গবন্ধুকে বরণকারীদের হাতে তখন দেখা যায় স্বাধীন দেশের লাল-সবুজ পতাকা।’

‘বরণ পর্বের পর সশস্ত্র বাহিনীর চৌকস দলের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার দেয়া হয় বঙ্গবন্ধুকে। এসময় বাজানো হয় জাতীয় সংগীতের সুর।’