সকাল ৭:৪২, ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







শীতের তীব্রতা আরো বাড়তে পারে

পানকৌড়ি নিউজ: নতুন বছরের শুরুতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গুঁড়ি গুঁড়ি ও হালকা বৃষ্টি হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে কর্মজীবী মানুষদের। এদিকে গত ৫ জানুয়ারি থেকে দেশের ওপর দিয়ে বইছে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ। এ সময় দিনের তাপমাত্রা বাড়লেও রাতে হ্রাস পায়। এতে রাতে শীতের তীব্রতা কিছুটা বাড়ে।

তবে আবহাওয়া অফিস বলছে, ’এই শৈত্যপ্রবাহ ও শীত আরও তীব্র হতে পারে। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা আরও কমতে পারে। আবারও জেঁকে বসতে হাড় কাঁপানো শীত। রাত থেকে সকাল পর্যন্ত ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। মাঝে মাঝে আকাশ মেঘলা থাকতে পারে।’

শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) ’ভোরে কুয়াশা না পড়লেও শীতের তীব্রতা অনুভূত হয়েছে। রোদ ওঠার পর ধীরে ধীরে তাপমাত্রা বাড়তে থাকে। ’সন্ধ্যার পর তাপমাত্র আবারও হ্রাস পেতে থাকে।’

’এদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় তেঁতুলিয়ায় ৯.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা টেকনাফে ২৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৪.৪ এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৪.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।’

আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে দিনের তাপমাত্রা বাড়ছে এবং রাতের তাপমাত্রা কমছে। তবে আগামী শনিবার বা রোববার রাতের তাপমাত্রা আরও হ্রাস পেতে পারে। এছাড়া দিনের তাপমাত্রাও হ্রাস পেতে পারে। দেশের উত্তর-পশ্চিমাংশে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।’ এতে শীতের তীব্রতা বাড়তে পারে। এছাড়া ঘন কুয়াশাও পড়তে পারে। তবে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই।

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকায়ও রাতের তাপমাত্রা কম থাকবে দিনের তাপমাত্রা কিছুটা কমতে পারে। শীতের তীব্রতাও বাড়তে পারে। বেশিরভাগ সময় আকাশ পরিষ্কার থাকার সম্ভাবনা বেশি। রাতে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। আপাতত বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই।