সকাল ৮:৫৭, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







মুজিববর্ষ: বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস স্মরণের বছর

পানকৌড়ি নিউজ: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ, বিশেষ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রেক্ষাপট তরুণ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে স্মরণীয় করতে মুজিববর্ষ উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। মুজিববর্ষে নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাদেশের জন্ম ও বঙ্গবন্ধুর জীবনচিত্র তুলে ধরা হবে বছরব্যাপী আয়োজনের মাধ্যমে। বঙ্গবন্ধুর জীবন ঘিরে ঐতিহসিক ঘটনার প্রাসঙ্গিকতায় বাংলাদেশকে তুলে ধরা হবে দেশ ও সারাবিশ্বে।

আগামী ১৭ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে মুজিববর্ষ। এই উৎসব চলবে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের এই আয়োজনের প্রারম্ভিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) বিকালে।

মুজিববর্ষ উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী জানান, ‘মুজিব জন্মশতবর্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর অর্জন, আত্মত্যাগ ও মহিমাকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হবে। বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শকে শ্রদ্ধা জানাতে বাংলাদেশে ও পৃথিবীর সব মুক্তিকামী মানুষ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করবে। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় স্মরণ করা হবে বছরব্যাপী।’

কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী জানান, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে দুটি কমিটি কাজ করছে। ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় কমিটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং মুজিববর্ষের উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম।’

মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা অনুষ্ঠানে দুই হাজার অতিথির অংশগ্রহণে প্রতীকী আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন তুলে ধরা হয়েছে। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের প্রতীকী আবহ তুলে ধরা হয়। ‘সেদিন বঙ্গবন্ধুকে যেভাবে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছিল সেভাবে প্রতীকী অভ্যর্থনা ও গার্ড অব অনার দেওয়া হয়েছে অনুষ্ঠানে।’

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আয়োজন সম্পর্কে ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী জানান, ১০ জানুয়ারি বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি অসাধারণ সময়। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন। মুক্তির পর সেখান থেকে বঙ্গবন্ধু একটি ব্রিটিশ রাজকীয় বিমানে বাংলাদেশে আসেন ১০ জানুয়ারি। বাংলাদেশে আসার আগে একটি সংক্ষিপ্ত যাত্রাবিরতি ছিল দিল্লিতে। ১০ জানুয়ারি দিনটি ছিল অসাধারণ, আনন্দঘন, উৎসব মুখর। সেই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ক্ষণগণনার আয়োজন করা হয়।

ক্ষণগণনায় প্রদর্শনে যতো আয়োজন

সারদেশে ক্ষণগণনার যন্ত্র বসানো হয়েছে। ‘ঢাকায় জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে, হাতিরঝিল, উত্তরা, বাংলাদেশ সচিবালয়ে ক্ষণগণনার যন্ত্র বসানো হয়েছে। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনসহ দেশের সব সিটি করপোরেশন এলাকায় ১৮টি ক্ষণগণনার যন্ত্র বসানো হয়েছে। সিটি করপোরেশন বাদ দিয়ে ৫৩টি জেলায় ক্ষণগণনার যন্ত্র বাসানো হয়েছে। টুঙ্গিপাড়া ও মুজিবনগরে বিশেষভাবে ক্ষণগণনার দুটি যন্ত্র বসানো হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ক্ষণগণনার ব্যবস্থা করেছে।’