সকাল ৭:১০, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







জোর করেই ‘অবসর’, মাশরাফির চোখে জল

ডেস্ক রিপোর্ট: খুব কাছ থেকেও বুঝার উপায় নেই। কিন্তু এতটা বছর যাকে ২২ গজে দেখা, যার ব্যাটিং-বোলিংয়ের শিরা-উপশিরাও জানাশুনা। তিনি যখন নীরবে নিভৃতে চোখের জল ফেলেন তখন তো ধাক্কাটা লাগারই কথা। হয়তো সবার মতো অঝোরে কাঁদেন না, হয়তো আর দশজনের মতো আবেগ হারিয়ে ফেলেন না।

তবে তিনিও যে মানুষ, তারও যে কষ্ট হয় সেটা নিশ্চিত। এই তো শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) ‘বিপিএলে রংপুরের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে প্লাটুন অধিনায়ক এমন কিছু কথা বললেন যেন আরেকটু হলে চোখের জলটাই গড়িয়ে পড়ে! তবে অল্প কথার মাঝেও চোখ ভিজেছে দু:খের জলে। চাপা কণ্ঠে বেরিয়ে এসেছে অসংখ্য দীর্ঘশ্বাস, হতাশা আর আক্ষেপ।’

হতে পারে অনেক দিনের জমিয়ে রাখা কষ্ট। আবার হতে পারে কোন এক মুহূর্তের। ‘তবে কী জোর করেই অবসরে পাঠানোর ইঙ্গিত। যেমনটা বললেন মাশরাফি বিন মুর্তজাও, ‘যখন টি২০ থেকে বিদায় নিয়েছি, অনেক কারণ আপনাদের বলেছি। আমি অভিমান-টভিমান নিয়ে চলি না।’

এটা একেবারেই নাই। অবসর নিয়ে যেটা বললেন, আপনি বলতে পারেন, অবসর সবাই করিয়ে দিয়েছে। আমি নিজে যে জায়গায় অবস্থান করছি, সেটা উপভোগ করছি। মাঠ থেকে অবসর নেব কি নেব না, এখনও সিদ্ধান্ত নেইনি। যদি সেরকম অবস্থা তৈরি হয়, ক্রিকেট বোর্ড যদি মনে করে, তাহলে হয়তোবা চিন্তা-ভাবনা করব।’

যেন আরও বেশি যন্ত্রণা দিচ্ছে। ‘অবশ্য এ জন্য তেমন কোনো বিদায় চান না মাশরাফি, আশাও করেন না কেউ এখন আর তার জন্য ফুল নিয়ে আসবে, ‘নিজেকে আমার এত প্রাধান্য দেওয়ার দরকার আছে, এটা মনে করি না। নিজেকে আমি এত প্রাধান্য দেই না যে, আমাকে মাঠ থেকে বিদায় দেবেন সবাই, ফুলের তোড়া নিয়ে আসবেন। এটা প্রয়োজনীয় নয়। আমি যেমন আছি, ভালো আছি। উপভোগ করছি খেলা। জাতীয় দল অনেক দূরের ব্যাপার।’

মাঠেও আগের মতো ঝলকে নেই। ‘তাতে কানাঘুষা তো হবেই। তাই দলে জায়গা পাওয়াও মাশরাফির জন্য এখন বড় ইস্যু। তিনিও জানেন যদি ভালো না করেন তাহলে কাটা পড়তে হয়। সেজন্যই বাকিদের মতো তিনিও তাকিয়ে নির্বাচকদের পানে, ‘সত্যি কথা বললে, ৮ ম্যাচে ১ উইকেট (বিশ্বকাপে) পাওয়ার পর তো আমি দলে জায়গা প্রত্যাশা করতে পারি না।’

নির্বাচকেরা যদি মনে করেন আমাকে সুযোগ দেবেন, আমি সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করব। এই মুহূর্তে আমি ৮ ম্যাচে ১ উইকেট পেয়ে কিভাবে বলি জাতীয় দলে সুযোগ পাব? অন্য কেউ হলে অবশ্যই আরও আগে বাদ পড়ে যেত। ‘সাধারণ খেলোয়াড় হিসেবে যেভাবে চিন্তা করার, সেভাবেই করছি। যদি ওয়ানডে আসে, (নির্বাচকরা) মনে করেন আমার খেলা উচিত, তাহলে অবশ্যই আমি থাকব। দিনশেষে আমার কাছে ক্রিকেটটাই সব। যত দিন খেলছি, মন দিয়ে খেলব। বাকিটা নির্বাচকদের ব্যাপার, বোর্ড দেখবে।’