রাত ৮:২৬, ৭ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







লাখো বাংলাদেশি অনিশ্চয়তায় মধ্যে মালয়েশিয়ায়

পানকৌড়ি নিউজ: মালয়েশিয়া সরকারের ‘ব্যাক টু গুড’ এর আওতায় নিবন্ধনের সময় শেষ হয়ে গেছে। ‘১৩ জানুয়ারি শেষ হয়ে যাচ্ছে নিবন্ধিতদের ঘরে ফেরার সুযোগ। তারপরও অনেক শ্রমিক অবৈধভাবে মালয়েশিয়া থেকে গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

কেনো এই সুযোগ গ্রহণ করলেন না এমন প্রশ্নের সোজা-সাপ্টা উত্তর দিয়েছেন শ্রমিকরা, ‘ঘরে ফিরে কি করবেন তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। তাই অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কারণে অনিশ্চয়তায় ভর। কেউ কেউ ঋণ করে মালয়েশিয়া গেছেন সেই ঋণ শোধ হয় নি। এমন অবস্থায় দেশে ফিরে নিজে কি খাবেন আর ঋণই বা শোধ করবেন কি দিয়ে। তার চেয়ে আত্মগোপন করে যতদিন থাকা যায় তাতেই মঙ্গল।’

আরেক শ্রেণি রয়েছে যারা সুযোগ শেষ হলেও আবার সুযোগ দেবে এমন আশায় বুক বাঁধছেন। ‘তারা মনে করছেন, মালয়েশিয়া সরকার আবারও এমন সুযোগ দেবে। যেমন ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করা হয়েছিল। তাদের ধারণা মালয়েশিয়ায় শ্রমিকের অনেক চাহিদা রয়েছে, তারা বাধ্য হবে আবার সুযোগ দিতে। সেই সুযোগের আশায় থেকে গেছেন কেউ কেউ। অল্প কিছু সংখ্যক শ্রমিক রয়েছেন যারা শুধুমাত্র প্লেন টিকিট সংগ্রহের অভাবে দেশে ফেরার বিশেষ পাস নিতে পারেন নি।’

সাধারণ ক্ষমার আওতায় আগস্ট টু ডিসেম্বর ‘‘ব্যাক টু গুড” কর্মসূচি ঘোষণা করে মালয়েশিয়া সরকার। এতে বলা হয় যারা অবৈধভাবে মালয়েশিয়া প্রবেশ করেছেন, আবার যারা বৈধভাবে এলেও নানা কারণে অবৈধ হয়ে পড়েছেন। তারা ৭০০ রিঙ্গিত দিয়ে দেশে ফেরার জন্য বিশেষ পাস নিতে পারবেন। এ জন্য পাসপোর্ট ও প্লেন টিকিটসহ ইমিগেশনে সশরীরে হাজির হতে হবে।’

‘যাদের কাছে পাসপোর্ট নেই তারা স্ব স্ব দেশের হাইকমিশন থেকে ট্রাভেল পাস নিয়ে হাজির হলেই বিশেষ পাস দেওয়া হবে। নিবন্ধন করে পাস গ্রহণের ৭ দিনের মধ্যে তাদেরকে মালয়েশিয়া ছাড়তে হবে। যারা এই সুযোগ গ্রহণ করবেন তাদেরকে আগামী ৫ বছরের জন্য কালো তালিকাভূক্ত করা হবে। এই সময়ে তারা মালয়েশিয়া প্রবেশের সুযোগ পাবেন না।’

এই কর্মসূচির আওতায় বাংলাদেশ, ‘ইন্দোনেশিয়া, ভারত, পাকিস্তান, মায়ানমার, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, ফিলিপাইন ও চীনের ১ লাখ ৯৫ হাজার ৪৭১ জন নিবন্ধন করেন। এরমধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক রয়েছে ইন্দোনেশিয়ার। সংখ্যার দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।’