সকাল ১১:০১, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







হাতে ১৪ সেলাই নিয়েই মাশরাফি জানিয়ে দিলেন, এলিমেনেটারিতে খেলবো আমি

ক্যাচটা ধরার জন্য বাঁদিকে ঝাঁপিয়েছিলেন মাশরাফি। কিন্তু হাতের তালুতে বলটা জমলো না। রাইলি রুশোর সেই শটে প্রচন্ড গতিতে হাতে লেগে বেরিয়ে গেল। ’সঙ্গে সঙ্গে বাঁ হাতটা চেপে ধরলেন ঢাকা প্লাটুনের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মতুর্জা। উঠে দাড়িয়ে ডাগআউটের দিকে ইশারা করলেন। ফিজিও মাঠে এলেন। সেই চোট সারাতে রাতেই মাশরাফির হাতে সেলাই পড়ল; সবমিলিয়ে ১৪টি।’

হাতে প্রচন্ড যন্ত্রণা হচ্ছে। ‘কিন্তু সেই চোট ছাপিয়ে ঢাকার অধিনায়কের চিন্তা তখন ম্যাচের ফল নিয়ে। ম্যাচে তখন খুলনা টাইগার্স বিশাল স্কোর তাড়া করে জয়ের পথে। ৮ উইকেটে এই ম্যাচ হেরে ঢাকা প্লাটুনকে এখন খেলতে হচ্ছে এলিমেনেটারিতে। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে সেই ম্যাচ ১৩ জানুয়ারি, দুপুরে।’

১৪ সেলাই হাতে নিয়ে শনিবার রাতেই টিম হোটেলে ফিরেই মাশরাফি জানিয়ে দিলেন-‘এলিমেনেটারিতে খেলবো আমি!

‘হাতে ১৪ সেলাই! সঙ্গে প্রচন্ড ব্যথা! কিন্তু ঢাকার অধিনায়ক মাঠে নামতে মরিয়া। মাশরাফির জন্য এমন দৃঢ়তা অবশ্য নতুন কিছু নয়। দু’পায়ে সবমিলিয়ে সাতটি অস্ত্রোপচারের পরও লম্বা সময় ধরে মাঠে ঠিকই লড়ে চলেছেন। প্রতিটি বল করার সময় পুরো পায়ে পেঁচিয়ে রাখা ব্যান্ডেজ টেনে ঠিক করছেন। খেলছেন। লড়ছেন। জিতছেন। জেতাচ্ছেন। সবসময় যে জিতছেন তাও নয়, তবে মাঠে তার উপস্থিতিই যে পুরো দলের জন্য অনেক বড় অনুপ্রেরণা।’

ঢাকা প্লাটুনের ম্যানেজার আহসানউল্লাহ হাসান তার দলের অধিনায়কের এই দৃঢ়তা প্রসঙ্গে বার্তা২৪কে জানাচ্ছিলেন-‘মাশরাফি সত্যিকার অর্থেই ফাইটার। ‘সারাক্ষণ তার একটাই চিন্তা-কিভাবে দলের ভালো কিছু হবে। দল কিভাবে সাফল্য পাবে সেই পরিকল্পনায় ব্যস্ত থাকা। হাতে এতো ভয়াবহ ইনজুরি নিয়ে যে ক্রিকেটার পরদিন মাঠে নামার জন্য জেদ ধরে- সে আসলেই অন্যকিছু! এটা শুধুমাত্র আবেগের বিষয় না, মাঠের লড়াইয়ে জিততে হলে এমনকিছু বাড়তি জেদেরও দরকার হয়।’

‘আর মাশরাফির বিকল্প তো এখনো আমরা তৈরি করা তো দুরের কথা। খুঁজেই পাইনি! এ যে দেখেন খুলনার বিপক্ষে ম্যাচে আমাদের চার পেসারদের মধ্যে সবচেয়ে ভাল বোলিং কিন্তু মাশরাফিরই। সত্যি বলতে কি ও মাঠে দাড়িয়ে থাকাই যে দলের জন্য অনেককিছু ‘