রাত ৯:০৭, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







১৩ জানুয়ারি: মন্ত্রিসভায় জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সংগীত নির্ধারণ

পানকৌড়ি নিউজ: ১৯৭২ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে চৈত্র মাস (১৪ এপ্রিল) পর্যন্ত জমির খাজনা মওকুফসহ গুরুত্বপূর্ণ বেশকিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ১৩ জানুয়ারি বিকাল তিনটায় বঙ্গবন্ধু এবং মন্ত্রিসভার সদস্যরা সচিবালয় ত্যাগ করার পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব তৌফিক ইমাম সাংবাদিকদের বৈঠক বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানান।

তৌফিক ইমাম বলেন, ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ১৩৭৮ এর চৈত্র মাস অর্থাৎ ৭২ এর ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বকেয়া ও সুদসমেত কৃষিজমির সবরকম খাজনা মওকুফের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ মন্ত্রিসভার এই সিদ্ধান্ত সরকারি হ্যান্ডআউটে জানানো হয়। জাতীয় মুক্তিসংগ্রামে অংশগ্রহণকারী কৃষকদের বাঁচার সংগ্রাম, গ্রামাঞ্চলে বর্বরবাহিনীর ধ্বংসলীলা এবং লাখ লাখ লোকের গৃহহারা হওয়ার কথা বিবেচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। মন্ত্রিসভার প্রথম আনুষ্ঠানিক বৈঠকটি এদিন সকাল সাড়ে ১১টায় অনুষ্ঠিত হয়।’

জাতীয় পতাকা থেকে মানচিত্র বাদ

‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতীয় পতাকা থেকে দেশের মানচিত্র বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। দেশের মানচিত্র সংবলিত পতাকা অত্যন্ত জটিল এবং সাধারণ লোকের পক্ষে এর সঠিক নমুনা তৈরি অসুবিধাজনক বিধায় এই পরিবর্তন আনা হয়। একইসঙ্গে সরকারের গেজেট নোটিফিকেশন বাংলায় প্রকাশের সিদ্ধান্ত হয়। তবে বিদেশি প্রতিষ্ঠানের সুবিধার্থে গেজেটের একটি ইংরেজি সংস্করণও প্রকাশ করা হবে। বাসসের বরাতে দৈনিক বাংলায় এ খবর প্রকাশ করা হয়।’

জাতীয় সংগীত ও কুচকাওয়াজ সংগীত নির্ধারণ

‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত এই গানটি বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত হিসেবে নির্ধারণ করা হয় এইদিনের বৈঠকে। যুদ্ধের ময়দানে মুক্তিযোদ্ধারা এই গানটি গেয়ে উজ্জীবিত থাকতেন বলে সেটিকে বিবেচনায় রাখা হয়। গানটির শুরু হচ্ছে’ আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি। আর শেষ হচ্ছে, মা তোর বদনখানি মলিন হলে ওমা আমি নয়ন জলে ভাসি। ‘মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আনুষ্ঠানিক উৎসব অনুষ্ঠানে যন্ত্রের মাধ্যমে শুধু প্রথম চার লাইন বাজানো হবে। মন্ত্রিসভা একইসঙ্গে কাজী নজরুল ইসলামের লেখা ‘চল চল চল’ গানটির ২১টি লাইন কুচকাওয়াজ সংগীত হিসেবে নির্ধারণ করে।’

দফতর পুনর্বণ্টন

‘দৈনিক বাংলা পত্রিকায় এইদিন লিড স্টোরি ছিল মন্ত্রিসভার বৈঠক এবং দফতর পুনর্বণ্টন নিয়ে। প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান নিজের হাতে দেশরক্ষা, স্বরাষ্ট্র, কেবিনেট সংক্রান্ত দফতর, তথ্য ও বেতার দফতরের দায়িত্বভার রেখে অন্যান্য দফতর মন্ত্রীদের মাঝে পুনর্বণ্টন করে দেন। বলা হয়, যেসব দফতরের ভার কোনও মন্ত্রীকে ‘দেওয়া হয়নি, সেসব দফতরও তার হাতে থাকবে।’

সৈয়দ নজরুল ইসলাম শিল্প ও বাণিজ্য, ‘তাজউদ্দিন আহমেদ অর্থ, পরিকল্পনা ও রাজস্ব দফতর, এম মনসুর আলীকে যোগাযোগ দফতর, খন্দকার মোশতাক আহমদ বিদ্যুৎ, সেচ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ, এ এইচ এম কামরুজ্জামন সাহায্য ও পুনর্বাসন দফতর, শেখ আব্দুল আজিজ কৃষি, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় দফতর, অধ্যাপক ইউসুফ আলীকে শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক দফতর, জহুর আহমদ চৌধুরীকে স্বাস্থ্য, শ্রম সমাজকল্যাণ ও পরিবার পরিকল্পনা দফতর, ফণীভূষণ মজুমদারকে খাদ্য ও সরবরাহ বিভাগ, ড. কামাল হোসেনকে আইন ও পার্লামেন্টারি বিষয়ক দফতর ও শাসনতন্ত্র প্রণয়ন সংক্রান্ত দফতরের দায়িত্ব ভার দেওয়া হয়েছে।’

‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিসভা মুক্তিযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী ও বর্বর সেনাবাহিনীর হাতে নৃশংসভাবে নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে ১৬ জানুয়ারি শোক দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সেদিন সরকারি-বেসরকারি ভবনে পতাকা অর্ধনমিত থাকবে এবং সবাই কালো ব্যাজ ও কালো বাহুবন্ধনী ব্যবহার করবে। এছাড়া, সব উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনার ব্যবস্থা করা হয়।’ সুত্র: বাংলা ট্রিবিউন