বিকাল ৫:৫২, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







সিটি নির্বাচনে সংসদ সদস্যের সমন্বয়ক হতে বিধিতে বাধা নেই

লিয়ন মীর : আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জাতীয় সংসদের কোনো সদস্য কোনোরকম সম্পৃক্ত হতে পারবে না। এমনকি তারা নির্বাচনে কোনো দলের সমন্বয়কও হতে পারবে না। এছাড়া সবকিছু করতে পারবে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার এই বক্তব্যের পর ঢাকা দুই সিটি নির্বাচনে নড়েচড়ে বসেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। চলছে নানারকম আলোচনা।

কেননা ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় এ নির্বাচনী লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ তাদের প্রার্থীদের পক্ষে সমন্বয়কের দায়িত্ব দিয়েছে দলটির উপদেষ্টা পরিষদের দুই সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদকে। তারা দুজনই জাতীয় সংসদের সদস্য।

তবে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) ড. এম সাখাওয়াত হোসেনে এবিষয়ে ভিন্নমত প্রষোণ করেছেন। তিনি এক সাক্ষাৎকারে ব্যখ্যা দিয়ে বলেছেন, আওয়ামী লীগের দুই সমন্বয়কের ব্যাপারে সিইসি যা বলেছেন, সিটি করপোরেশনের নির্বাচনী আচরণ বিধিমালাতে তা নেই। তবে সিইসি চাইলে এসংক্রন্ত পরিপত্র জারি করতে পারেন। কারণ সমন্বয়কারীকে নির্বাচনী প্রচার থেকে বাদ দিতে হলে পরিপত্র জারি করতে হবে। বর্তমানে যে বিধি রয়েছে এর কোথাও সমন্বয়কারী নেই। কেননা ঘরে বসে কেউ যদি দলের জন্য কিছু করে সেখানে কিছু করার নেই।

‘সিটি করপোরেশন নির্বাচনী আচরণ ২০১৬ বিধিমালার ২২-এর ১ ধারায় উল্লেখ আছে- ‘সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী নির্বাচন-পূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণায় বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করিতে পারিবেন না। তবে শর্ত থাকে যে, উপরোক্ত ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার ভোটার হইলে তিনি কেবল তাহার ভোট প্রদানের জন্য ভোটকেন্দ্রে যাইতে পারিবেন।’

‘সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বলতে ওই বিধিমালার সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের স্পিকার, সরকারের মন্ত্রী, চিফ হুইপ, ডেপুটি স্পিকার, সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা, সংসদ উপনেতা, বিরোধীদলীয় উপনেতা, প্রতিমন্ত্রী, হুইপ, উপমন্ত্রী বা তাদের সমপদমর্যাদার কোনো ব্যক্তি, সংসদ সদস্য এবং সিটি করপোরেশনের মেয়রদের বোঝানো হয়েছে।’