রাত ৯:১৭, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







দিলদারকে মনে রেখেছে দর্শক, ভুলে গেছে সিনেমার মানুষ

পানকৌড়ি নিউজ: ‘ঢাকাই সিনেমার কিংবদন্তি কৌতুক অভিনেতা দিলদার। ১৯৪৫ সালের ১৩ জানুয়ারি চাঁদপুরে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ১৯৭২ সালে ‘কেন এমন হয়’  চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে ঢালিউডের সিনেমা আত্মপ্রকাশ করেন তিনি।’

‘বাংলা চলচ্চিত্রে কিংবদন্তী কৌতুক অভিনয়ের জাদুকর ছিলেন তিনি। তার মৃত্যুর পর আজও তার শূন্যস্থানটি পূরণ হয়নি। এই অভিনেতা আজও রয়ে গেছেন মানুষের হৃদয়ে। থাকবেন অনন্তকাল। ২০০৩ সালের ১৩ জুলাই তিনি চিরবিদায় নেন পৃথিবী থেকে। তার চলে যাওয়ার পর থেকে ঢাকাই ছবি থেকে যেন প্রাণ হারিয়েছে কমেডি। দিলদারের উত্তরসূরী হিসেবে কাওক চোখে পড়েনি দীর্ঘ দুই দশকে।’

‘কৌতুকের রাজাকে আজও মিস করেন বাংলা সিনেমা প্রেমীরা। তার অভিনীত চলচ্চিত্র এখনও প্রচার হয় বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে। তার মতো কেউ আর নেই বলে আফসোসে বুক বাধে দর্শকরা। তবে দিলদার চলে গেলেও তার জনপ্রিয়তা কমেনি একটুও। এখনও তার এতটুকুও জনপ্রিয়তা কমেনি।  দিলদার না থাকলেও এখনও আছে তার পরিবার। ৫৮ বছর বয়সে চলে গেলেও রেখে গেছেন স্ত্রী রোকেয়া বেগম ও দুই কন্যা সন্তান মাসুমা আক্তার ও জিনিয়া আফরোজকে।’

‘দিলদারের পরিবারের খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তার দুই মেয়ে ঢাকায় থাকেন। বড় মেয়ের  মাসুমা আক্তার এক সন্তানের জননী। আর ছোট মেয়ে জিনিয়ার একছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। তার স্বামী মারা গেছেন। জিনিয়া আগে টেলিকমিনিকেশনে চাকরি করতেন। সেখানে থেকে চলে আসেন ব্রাক ব্যাংকে। পাঁচবছর চাকরির পর সেটিও ছেড়ে দেন।’

‘দিলদারের দুই মেয়ে জানান, ১৯৯৪ সালে বাবা টাকা জমিয়ে সারুলিয়া (ডেমরা) তে একটা পাঁচতলা বাড়ি করেছেন। এখন চারতলা পর্যন্ত ভাড়া দেয়া এবং পাঁচ তলায় আমার মা মাঝেমধ্যে থাকেন। মাঝে মধ্যে মা আসেন। তাছাড়া চাঁদপুর এবং ঢাকায় আমাদের দু-বোনের কাছেও থাকেন। পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে তিনি কাজ করেছেন দিলদার। অথচ এখন তার খোঁজ খবর নেয়না চলচ্চিত্রের কোন মানুষ। জন্মদিন ও মৃত্যু দিবস কোন প্রকার স্মরণ ছাড়াই চলে যায়।’