সকাল ১১:৫০, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







পেট্রোল বোমায় ৬ বাসযাত্রী হত্যা: তদন্তের ত্রুটিতে আটকে আছে বিচার প্রক্রিয়া

আজ ১৪ জানুয়ারি, ‘মঙ্গলবার। রংপুরের মিঠাপুকুরে বাসে পেট্রোল বোমা হামলার ৫ বছর। ২০১৫ সালের এই দিনে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীর ফতেপুর নামক স্থানে একটি যাত্রীবাহী নৈশ কোচে পেট্রোল বোমা হামলায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে প্রাণ হারিয়েছিলেন ৬ যাত্রী। ব্যাপক তদন্ত করে পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনার সঙ্গে জামায়াত-শিবির জড়িত। এ ঘটনার পাঁচ বছর পার হলেও পুলিশের তদন্ত জনিত ক্রটির কারণে মামলার সব কার্যক্রম হাইকোর্টের আদেশে আড়াই বছর ধরে বন্ধ আছে। এছাড়া পুলিশ ১৩২ জনের নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করলেও এখন পর্যন্ত ৬১ আসামিকে গ্রেফতারই করতে পারেনি তারা।’

‘পুলিশ ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ১৪ জানুয়ারি কুড়িগ্রামের উলিপুর থেকে খলিল পরিবহনের একটি নাইটকোচ যাত্রীদের নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিল। রাত প্রায় ১ টার দিকে রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার বাতাসন এলাকায় পৌঁছালে জামায়াত-শিবিরের দুর্বৃত্তরা বাসটি লক্ষ্য করে কয়েকটি পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে বাসের ভেতরে আগুন ধরে যায় এবং জীবন্ত দগ্ধ হয়ে এক শিশুসহ ছয় জন নিহত হন। অগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন আরও ২৫ যাত্রী। গুরতর আহতদের রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। যাদের মধ্যে অনেকেই চিরদিনের মতো পঙ্গু হয়ে গেছে।’

এ ঘটনায় এসআই আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে মিঠাপুকুর থানায় ৮৭ জন জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে মিঠাপুকুর থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দায়ের করে। পরবর্তীতে তদন্ত করে মিঠাপুকুর থানার ওসি (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ১৩২ জনের নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। মামলাটির বিচার রংপুরের অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ আদালত-১ এ শুরু হয়। ইতোমধ্যে ৬০ জন সাক্ষীর মধ্যে ৪৪ জনের সাক্ষ্য ও জেরা শেষ হয়েছে। সরকার পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি আব্দুস সাত্তার অ্যাডভোকেট জানান, মামলায় ডাক্তার তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ ৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ বাকি রয়েছে।

তিনি আরও জানান, চাঞ্চল্যকর এ মামলাটি পুলিশের দায়িত্বহীনতার কারণে তদন্ত জনিত ত্রুটির সুযোগ নিয়ে আসামিপক্ষ হাইকোর্টে আবেদন করলে মামলাটির কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে মামলাটি হাইকোর্টে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে।

তিনি জানান, আসামিপক্ষ মামলাটি কোয়াশম্যান্ট করার জন্য হাইকোর্টে আবেদন করায় মামলার কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে ।

এদিকে রংপুরের সিনিয়র আইনজীবী এম এ বাশার টিপু জানান, ‘অ্যাটর্নি জেনারেলের দফতর থেকে মামলাটি শুনানির উদ্যোগ নিলে আসামিপক্ষে মামলা কোয়াশম্যান্টের আবেদন খারিজ হয়ে যেত। কিন্তু কেন তারা উদ্যোগ নিচ্ছে না সে ব্যাপারে তারাই ভালো বলতে পারবেন।’

অপরদিকে সরকার পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী প্রধান আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল মালেক অ্যাডভোকেট বলেন, ‘চাঞ্চল্যকর এ মামলাটি পুলিশ বাদী হয়ে ৮৭ জন আসামির নাম উল্লেখ করে মিঠাপুকুর থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দায়ের করে পরবর্তীকালে তদন্তকালে ওই ৮৭ জন আসামিসহ ১৩২ জনের নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ।’

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি স্বীকার করেন, ‘মামলাটি তদন্তে ক্রটি থাকায় এ সুযোগ নিয়েছে আসামিপক্ষ। তারা হাইকোর্টে মামলাটি খারিজ করার আবেদন জানিয়ে আবেদন করায় আদালতের নির্দেশে মামলার কার্যক্রম এখন পুরোপুরি স্থগিত রয়েছে’