রাত ১২:৪৯, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







নৌকার জয় নিশ্চিত করতে চায় যুব মহিলা লীগ

ডেস্ক রিপোর্ট: একই দিনে পূজা ও ভোট হলে কোনও সমস্যা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তিনি বলেন, ‌‌’পূজার জায়গায় পূজা আর নির্বাচনের জায়গায় নির্বাচন চলবে।’

’মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, আমাদের এ বিষয়ে নতুন করে বক্তব্য নেই। কারণ নির্বাচন কমিশন আইন, সরস্বতী পূজা, এসএসসি পরীক্ষা, সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে সর্বোত্তম দিনেই নির্বাচনের তারিখ ঠিক করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ’৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটি ভোট অনুষ্ঠিত হবে। তারা (বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ) অন্য তারিখে ভোট নেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। কমিশন কেন পেছানো সম্ভব নয়, তা ব্যাখ্যা করেছেন। তারা হয়তো সে ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হতে পারেননি।’

মো. আলমগীর বলেন, ’তারা আদালতে গিয়েছেন। আদালত উভয়পক্ষের কথা শুনে তারাও বিবেচনা করে দেখেছেন যে, ৩০ জানুয়ারি সর্বোত্তম দিন। তারা কনভিন্সড। যে কারণে বলেছেন যে, ৩০ জানুয়ারি ভোট করতে কোনও বাধা নেই।’

এক প্রশ্নের জবাবে ইসির সিনিয়র সচিব বলেন, ’পরিস্থিতির অবনতি হবে- কেন এটা বলেছেন তা আমাদের বোধগম্য হয়নি। যারা ধার্মিক তারাও জানেন, আইন-শৃঙ্খলা মানতে হয়। সবাই সচেতন নাগরিক। নির্বাচন জমে উঠেছে। সবাই নির্বাচনমুখী। আমরা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা আশা করি না। এরপরও তারা আদালতে গেছেন। যে রায় এসেছে তারাও নিশ্চয় তা মাথা পেতে নেবেন। ভুল-ভ্রান্তি থাকলেও সবাই হয়তো বুঝবেন, ৩০ জানুয়ারি ভোটের সিদ্ধান্ত বৃহত্তর স্বার্থেই নেওয়া হয়েছে। একটা সুন্দর দিন বেছে নেওয়া হয়েছে। কারও কোনও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।’

তিনি বলেন, ’কমিশন যেটা বলেছেন, সব স্কুলে কিন্তু পূজা হয় না। বাকি স্কুলে যেখানে পূজা হবে, সে জায়গাটা ছেড়ে দেওয়া হবে। আবার সরকারি অনেক অফিস, আদালতেও পূজা হয়। সেখানে অনেক রুম থাকে। তাই যেখানে পূজা হবে, সে রুম ছেড়ে দিয়ে অন্য রুমে নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হবে। পূজার জায়গায় পূজা চলবে, নির্বাচনের জায়গায় নির্বাচন হবে। আর রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনও দূর্গাপূজার সময় ছিল। সেখানে তো কোনও সমস্যা হয়নি। নির্বাচনও হয়েছে, পূজাও হয়েছে একই প্রতিষ্ঠানে পশাপাশি। কোনও সমস্যা তো হয়নি।’