দুপুর ২:২৬, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







দরজা দেখিয়ে দিয়েছে বিসিবি; তবুও অপেক্ষায় মাশরাফি

লম্বা সময় ধরে বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট খেলছে না। সূচিতে নেই। ‘তাই খেলছে না। শেষ ওয়ানডে খেলেছিল বাংলাদেশ গেল বছরের জুলাইয়ে। প্রতিপক্ষ ছিল শ্রীলঙ্কা।’

‘তারপর পেছনের ছয়মাস জুড়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল কোন ওয়ানডে ম্যাচ খেলেনি। কিন্তু সেই তখন থেকে আজ এই এখন পর্যন্ত এবং সামনের আরো কিছুদিন অন্য এক ইনিংস চলছে বাংলাদেশের ক্রিকেটে-যার নাম; ‘মাশরাফির অবসর তত্ত্ব’।’

‘যখনই মিডিয়ার মুখোমুখি হচ্ছেন মাশরাফি প্রতিবার এই ‘অবসর তত্ত্ব’ নতুন তথ্য নিয়ে হাজির হচ্ছে! সেই তথ্য কখনো মাইক বাজিয়ে শোনাচ্ছেন বিসিবির বড় কর্তা আবার কখনো মাইক্রোফোনের সামনে আসছেন মাশরাফি।’

‘ক্রিকেট থেকে নিজের সম্ভাব্য অবসর নিয়ে মাশরাফি করছেন মন্তব্য। আর সেই রেশ না কাটতেই বিসিবি পরক্ষণেই দিচ্ছে বক্তব্য,

আশঙ্কা জাগছে মন্তব্য ও বক্তব্যের এই রেসে নম্রতার সুর যেন আবার হারিয়ে না যায়

‘একটা ব্যাপার পরিষ্কার যে মাশরাফি বিন মর্তুজার আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট থেকে সম্ভাব্য বিদায় নেয়ার বিষয়টি এখন পুরোপুরি বিষ্ময়! বিসিবি’র বক্তব্যে এটা পরিষ্কার যে তারা মাশরাফির জন্য বিদায়ের মঞ্চ তৈরির অর্ডারও দিয়ে ফেলেছিল। বিসিবি সভাপতি নিজেই বলছেন-‘ওকে আমরা একবার অফার (অবসর নেয়ার বিষয়ে) করেছিলাম। আর এই বিষয়ে বিশ্বকাপের সময়েই লন্ডনে মাশরাফির সঙ্গে আমার কথা হয়েছিল।’ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দেশের মাটিতে একটি ওয়ানডে সিরিজের আয়োজন করে বিসিবি মাশরাফির হাতে বিদায় মানপত্র ও ফুলের মালা পরাতে চেয়েছিল।’

-কিন্তু কেন সেই বিদায়ী মঞ্চ আর শেষপর্যন্ত সাজানো হলো না?

বিসিবি সভাপতির পরিষ্কার উত্তর-‘যাই হোক পরে ও (মাশরাফি) আর রাজি হলো না। আমাকে বলল, এই বিপিএল পর্যন্ত দেখতে চায়। তারপর সিদ্ধান্ত নেবে। আর এখন আমি মিডিয়ায় দেখতে পাচ্ছি সে বলছে-তার নাকি ঘটা করে বিদায় নেয়ার ইচ্ছেই নেই!