সকাল ১০:২৪, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







আওয়ামী লীগ সরকারের জনপ্রিয়তাই সিটি নির্বাচনে বিশাল বিজয় বয়ে আনবে

লিয়ন মীর: বাংলাদেশের রাজনীতি, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, মানবাধিকার, সামাজিক অবস্থানসহ নানান বিষয় নিয়ে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক অসংখ্য গবেষণা প্রতিষ্ঠান গবেষণা করে প্রাপ্ত ফল প্রকাশ করে আসছে দশকের পর দশক ধরে। কখনো সেই ফল ক্ষমতাসীনদের পক্ষে যায় আবার কখনো সেটা সরকারের বিপক্ষে যায়। মাঝে মাঝে কিছু ফল সরকারকে বেশ বেকায়দায় ফেলে দেয় এবং তুমুল আলোচনা-সমালোচনার ঝড় তোলে।

তবে বর্তমানে দেখা যাচ্ছে দিন যতো অতিবাহিত হচ্ছে ক্ষমতাসীন  শেখ হাসিনা সরকার ততোই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এই জনপ্রিয়তা দেশ-বিদেশ সবখানেই সমানতালে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশ নিয়ে গবেষণা করা দেশি-বিদেশী গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলোই একের পর এক বর্তমান সরকারের চমকপ্রবদ সফলতার চিত্র প্রকাশ করছে।

এছাড়াও বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা নিজেই বিশ্বের বুকে বিস্ময়কর এক নাম হয়ে উঠেছেন। আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো শেখ হাসিনাকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন উপাধিতে ভূষিত করছে  এবং তার গৃহিত পদক্ষেপগুলোর ভূয়সী প্রশংসা করছে।

ওয়াশিংটন ভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই) পরিচালিত এক জরিপে এমন তথ্যই উঠে এসেছে যে, দেশে তুমুল জনপ্রিয়তায় রয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার। জরিপে দেশের ৮৩ ভাগ নাগরিক সরকারের কার্যক্রমকে সমর্থন জানিয়েছেন। ২০১৮ সালের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুসারে সরকারের প্রতি জনসমর্থন বেড়েছে ১৯ ভাগ। বাংলাদেশ সঠিক পথে এগিয়ে যাচ্ছে বলে মত দিয়েছেন ৭৬ ভাগ নাগরিক।

গবেষণায় প্রাপ্ত ফল থেকে অনুমান করা যাচ্ছে, সরকার এবং শেখ হাসিনার এই সফলতার হাত ধরেই আওয়ামী লীগ দল হিসেবে দেশের মানুষের কাছে দিনি দিন অধিকতর জনপ্রিয় হয়ে উঠছে, বাড়ছে গণগ্রহণযোগ্যতা। দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, নিজ দলে শেখ হাসিনার শুদ্ধি অভিযানের ফলে সাধারণ মানুষের মনে এক ধরনের স্বস্তি ফিরে এসেছে। যার ফলেই সরকার এবং সরকারি দল সম্পর্কে মানুষের মনে ইতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছে এবং সাথে গ্রহণযোগ্যতা ও আস্থা বৃদ্ধি পেয়েছে।

সরকার এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই তুমুল জনপ্রিয়তাই আসছে ৩০ জানুয়ারি ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলীয় দুই মেয়র প্রার্থীকে বিশাল বিজয় এনে দেবে বলে মনে করছেন সমাজের বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার মানুষ। তাছাড়াও অন্যান্য প্রার্থী থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তুলনামূলক অধিকতর যোগ্য, অভিজ্ঞ, পরিচিত-জনপ্রিয় এবং গ্রহণযোগ্য বলে তারা মনে করছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. কবি মুহাম্মদ সামাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের সফলতার ফল ঢাকা সিটি নির্বাচনে তার দল ভোগ করবে। সরকারের উন্নয়ন বিবেচনায় নিয়েই সাধারণ মানুষ ভোট প্রদান করবে।’

‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, সরকারের উন্নয়ন এবং কর্মকান্ডে মানুষ যেহেতু সন্তোস প্রকাশ করছে। আর সরকারে যেহেতু আওয়ামী লীগ তাহলে দল হিসেবেও আওয়ামী লীগ নিশ্চিই জনপ্রিয়। সিটি নির্বাচনে মানুষ জনপ্রিয় দলকেই ভোট দেবে। নির্বাচনে যেসব দল প্রদিদ্বন্দ্বিতা করছে তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের চেয়ে অধিক আর কোনো জনপ্রিয় দলও নেই। আওয়ামী লীগই সেরাদের সেরা।’

‘অপরদিকে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে গবেষণায় ব্যস্ত কবি মোস্তফা ইকবাল বলেন, আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলোর জরিপে যেহেতু আওয়ামী লীগ সরকারের জনপ্রিয়তার চিত্র উঠে এসেছে সেহেতু আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তার একটা প্রভাব পড়বে। কেননা জরিপে আওয়ামী লীগ সরকারের সমর্থনের কথা বলা হচ্ছে। জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করার ক্ষেত্রেও মানুষ তার পচ্ছন্দের প্রার্থীকেই ভোট দেবে।’