বিকাল ৪:৪৬, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







১৭ জানুয়ারি: গণবাহিনীকে অস্ত্র জমা দেওয়ার নির্দেশ

নিউজ ডেস্ক: ‘প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তির সংগ্রামের লক্ষ্যে বীরত্বের সঙ্গে সংগ্রামরত গণবাহিনীর সদস্যদের বিভিন্ন কাজে নিয়োগের ঘোষণাসহ অস্ত্র জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন।’

‘বাসসের সংবাদে জানা যায়, ‘এক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী জানান, এই বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পুলিশ বাহিনী ও জাতীয় মিলিশিয়া বাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। একইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী দেশ গড়তে গণবাহিনীর প্রচেষ্টা এবং পরবর্তী উদ্যোগগুলো নিয়ে কথা বলেন।’

১৯৭২ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু ভারতের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও সোভিয়েত কনসাল জেনারেল সাক্ষাৎ গ্রহণ করেন। বাসস,বাংলাদেশ অবজারভার ও দৈনিক বাংলায় প্রকাশিত এইদিনের সংবাদ থেকে জানা যায়, সবাইকে নিয়ে দেশ ও অর্থনীতি পুনর্গঠনে কাজে নেমেছেন বঙ্গবন্ধু।’

বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ভারতের তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী

গণবাহিনীর প্রতি বঙ্গবন্ধুর বার্তা

গণবাহিনীর সদস্যেদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে অস্ত্র জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। তাদের কাজের সুযোগ করে দেওয়া হবে জানিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘গণবাহিনীর যেসব সদস্য তাদের লেখাপড়া সম্পূর্ণ করতে পারেননি, তাদেরকে জাতীয় উন্নয়নের সব ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জনের সুযোগ দেওয়া হবে এবং সব রকমের সুবিধা দওয়া হবে।

আর যারা পড়ালেখা সম্পন্ন করেছেন তাদের অবিলম্বে চাকরিতে নিয়োগ দেওয়া হবে উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘নিজেদের সব শক্তি ও প্রচেষ্টা একটি নয়াসমাজ গড়ে তোলার ও দেশের স্বাধীনতা রক্ষার কাজে নিয়োগ করতে হবে। বাংলাদেশের জনগণ ও আমার সরকারের পক্ষে গণবাহিনীর সব সদস্যকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।

বাহিনীর সদস্যরা এককভাবে ও সম্মিলিতভাবে যে দেশপ্রেম দেখিয়েছেন তার তুলনা হয় না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধারা যে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, তা কখনও বৃথা যাবে না। যে সোনার বাংলাদেশের স্বপ্ন আমরা এতদিন দেখেছি, তাই এখন আমাদের গড়ে তুলতে হবে।’

‘এজন্যই আমার সরকার ও আমি নিজে গণবাহিনীর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, আমাদের স্বাধীনতা রক্ষা ও একটি নয়া সমাজ প্রতিষ্ঠার কাজে আপনারা আপনাদের সব শক্তি ও প্রচেষ্টা নিয়োগ করেন।’

‘মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানিরা বাংলাদেশের নয়া সেনাবাহিনী, বিমান বাহিনী ও নৌ বাহিনীতে নেতৃত্ব প্রদান করবে, এটাই সরকার আন্তরিকভাবে কামনা করছে। বাংলাদেশ সরকার একটি নয়া পুলিশ বাহিনী গড়ে তোলার কাজে হাত দিয়েছে। এ বাহিনী হবে জনগণেরই পুলিশ বাহিনী। আমাদের বীর গণবাহিনী থেকে লোক নিয়েই এ বাহিনী তৈরি করা যাবে। গণবাহিনীর লোক দিয়েই গড়ে তোলা হবে পুলিশ বাহিনীর অফিসার-মণ্ডলী।’