ভোর ৫:৫৩, ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







ঢাকাকে ভালোবাসলে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে

প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর পর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপ-নির্বাচনে জয়লাভ করে মাত্র ৯ মাস দায়িত্ব পালন করেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। ব্যবসায়ে যিনি প্রতিশ্রুতি ধরে রেখে সফলতা লাভ করতে পারে, তিনি রাজনীতিতেও প্রতিশ্রুতি রাখতে পারবেন বলে মনে করেন আতিক।

‘গত ৯ মাসে কিছু অর্জন থাকলেও তা অনেক কম বলে স্বীকার করেন তিনি। অপরিকল্পিত ঢাকাকে সচল ও আধুনিক করার অঙ্গীকার নিয়ে ফের আওয়ামী লীগের মনোনয়নে ঢাকা উত্তরে ভোটযুদ্ধে নেমেছেন তিনি। একান্ত সাক্ষাৎকারে স্বপ্ন, পরিকল্পনা এবং সফলতা-ব্যর্থতা নিয়ে আতিকুল ইসলাম খোলামেলা কথা বলেছেন বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে।’

আপনি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হয়ে নগর উন্নয়নে কেন আসলেন?

আতিকুল ইসলাম: ব্যবসা ব্যবসার জায়গায়, আর এটি হলো রাজনীতি। অর্থনীতির সঙ্গে রাজনীতির আন্তঃসংযোগ আছে। ‘যিনি ব্যবসাতে ভালো করেন, তিনি প্রতিশ্রুতিও রাখতে পারবেন। ব্যবসা যখন করেছি তখন নিজস্ব লোক নিয়ে করছি, আর রাজনীতি যখন করছি সিটি করপোরেশন যখন চালাবো, সরকারি লোক নিয়ে চলতে হবে। সরকারি লোকদের মানসিকতা পরিবর্তন হচ্ছে ধীরে ধীরে।’

আমি মনে করি, ‘মানসিকতা পরিবর্তন হলে এখানে ধীরে ধীরে অর্থনীতি এবং রাজনীতিকে একসঙ্গে কাজে লাগিয়ে আমরা সামনে এগোতে পারবো।’

মেয়র হিসেবে গত ৯ মাসে আপনার এমন কী অর্জন, যে জন্য মানুষ আপনাকে ভোট দেবে?

আতিকুল ইসলাম: ‘আমাদের শহরটি হচ্ছে অপরিকল্পিত। এটিকে পরিকল্পিত করাই হলো মূল কাজ। এটি সবার সমন্বিত কাজ। সবাইকে মিলেই এগিয়ে আসতে হবে। আমরা করতে চাই, সুস্থ, সচল ও আধুনিক ঢাকা।’

সুস্থ ঢাকা, সচল ঢাকা, আধুনিক ঢাকার প্রতিশ্রুতি

আমাদের ড্রেন যেগুলো আছে, ‘সেগুলোতে যেন পানি আবদ্ধ হয়ে না থাকে, সবসময় তা দেখতে হবে। এজন্য আমরা মনে করি, জমে থাকা ড্রেনগুলোকে উদ্ধার করতে হবে। তারপর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ। বর্জ্য যেখানে ফেলা হয় সেটিও কিন্তু আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমি থাকা অবস্থায় এই বর্জ্য থেকে কীভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন করবো, সেটির কাজ এগিয়ে নিয়েছি ৯ মাসের মধ্যে।’

বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ পরিকল্পনা

‘প্রতিদিন ৩ হাজার ২০০ টন বর্জ্য হচ্ছে। আমাদের আরেকটা চ্যালেঞ্জ হচ্ছে বর্জ্য পৃথকীকরণ। আমরা যেটা চিন্তা করেছি, সেটা হলো— নিকেতনে এসটিএস ও ময়লার গাড়ি যেগুলো আছে, সেগুলোকে দুটো ভাগ করে দিয়েছি। কারণ, আমরা দেখতে চাচ্ছি, আমাদের বর্জ্যকে আপাতত শুষ্ক এবং ভেজা এই দুটো ভাগে ভাগ করলে কী দাঁড়ায়। পরীক্ষা হিসেবে আমরা নিকেতন এলাকাকে বেছে নিয়েছি।’

‘এজন্য আমি আমাদের নতুন যে প্ল্যান, আমিন বাজারের ল্যান্ডফিল, সেখানে একটা ইকো পার্ক তৈরি করছি। ইকো পার্কের মাধ্যমে আমাদের অর্থনীতির চাকা ঘুরবে। এখন হচ্ছে লিনিয়ার মেথডে, আমরা এখন ময়লা শুধু ফেলে দিচ্ছি। সেটাকে আমরা একটি শক্তিতে রূপান্তরিত করতে পারবো, এটি অনেক বড় লাভজনক ব্যবসা। আমরা সেটা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। সুতরাং, বর্জ্য নিয়েও অনেক কাজ করার আছে।’ সুত্র: বাংলা ট্রিবিউন