সকাল ১১:৫৬, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

আজ শুভ মহালয়া

ডেস্ক রিপোর্ট: শুভ মহালয়া আজ। দেবীপক্ষ ও শারদীয় দুর্গোৎসবের পুণ্যলগ্নের শুরু। হিন্দু শাস্ত্রমতে চন্ডিপাঠের মাধ্যমে দেবী দুর্গার আবাহনই মহালয়া নামে পরিচিত। মহালয়া শব্দের আক্ষরিক অর্থ ‘আনন্দ নিকেতন’। হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আগমনী সুর বাজবে আজ থেকে। শাস্ত্রমতে মহালয়ার মাধ্যমে দেবী দুর্গা আজ মর্ত্যলোকে পা রাখছেন। অশুভ অসুর শক্তির কাছে দেবতারা যখন পরাভূত এবং স্বর্গলোকচ্যুত তখন চারদিকে শুরু হয় অশুভ শক্তির প্রতাপ। একপর্যায়ে সেই অশুভ শক্তিকে পরাভূত করতে একত্রিত হন দেবতারা। এ সময় দেবতাদের তেজরস্মি থেকে আবির্ভূত হন অসুরবিনাশী দেবী দুর্গা। মহালয়ায় থাকে ঘোর অমাবস্যা। দুর্গা দেবীর তেজের আলোয় সেই অমাবস্যা দূর হয়ে শুভ শক্তি প্রতিষ্ঠা পায়।

বিশুদ্ধ পঞ্জিকা অনুযায়ী মহালয়ার পরে শুরু হয় দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা। এবার করোনাভাইরাসজনিত সৃষ্ট রোগ কভিড-১৯ সংক্রমণ রোধের মধ্যে কিছুটা অনাড়ম্বরভাবে অনুষ্ঠিত হবে দুর্গাপূজা। মহালয়া শেষে আগামী ২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হচ্ছে। এরপর ২৩ অক্টোবর শুক্রবার মহাসপ্তমী, ২৪ অক্টোবর শনিবার মহাষ্টমী, ২৫ অক্টোবর রবিবার মহানবমী এবং ২৬ অক্টোবর সোমবার বিজয়া দশমীর দিনে প্রতিমা নিরঞ্জনের মাধ্যমে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতার সমাপ্তি হবে।

এদিকে আজ ভোর থেকে রাজধানীসহ সারা দেশের স্থায়ী ও অস্থায়ী পূজামন্ডপগুলোতে চন্ডিপাঠ ও পূজা-অর্চনার মাধ্যমে দুর্গা দেবীকে আহ্বান করা হবে। এ উপলক্ষে জাতীয় ঢাকেশ^রী মন্দিরে ঘট স্থাপন, চন্ডিপাঠ, পূজা-অর্চনা ও আরাধনা অনুষ্ঠিত হবে। সব অনুষ্ঠান হবে সীমিত আকারে এবং সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নির্মল চ্যাটার্জি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘এবার শুধু পূজা-অর্চনার মাধ্যমে মহালয়ার অনুষ্ঠানসূচি পালন করা হবে। করোনার ঝুঁকি কমাতে ভক্তদের মন্দিরে আসতে আমরা নিরুৎসাহিত করছি।’ কভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে আসন্ন দুর্গাপূজা উদযাপনে আলোকসজ্জা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আরতির আয়োজন থেকে বিরত থাকার নির্দেশনার পাশাপাশি পূজা-অর্চনার সব কার্যক্রম স্বাস্থ্যবিধি মেনে পালনসহ প্রতিমা বিসর্জনে শোভাযাত্রা করা যাবে না বলে গত ২৬ আগস্ট ২৬টি নির্দেশনার কথা জানান পরিষদের নেতারা।