সকাল ৭:০৫, ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







গণতন্ত্র, ধর্ম নিরপেক্ষতা ও সমাজতন্ত্র: তিন নীতি অনুসরণের ঘোষণা

নিউজ ডেস্ক: ‘গণতন্ত্র, ধর্ম নিরপেক্ষতা ও সমাজতান্ত্রিক পদ্ধতির অর্থনীতির লক্ষ্য অনুসরণ করা হবে’— ১৯৭২ সালের ১৯ জানুয়ারি পূর্ব জার্মান বেতারকে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়, আবারও এই নীতি মনে করিয়ে দেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান।

এদিনে ভারতের ইন্দিরা গান্ধীর কাছ থেকে এক আবেগপ্রবণ বার্তা আসে বঙ্গবন্ধুর কাছে। স্বাধীন বাংলার ওপর দিয়ে বিমানে করে যাওয়ার সময় ইন্দিরা গান্ধী সেই বার্তা পাঠান। একইসঙ্গে বঙ্গবন্ধু এদিন দেশি-বিদেশি বেশকিছু সাক্ষাৎকার দেন, যেখানে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গুরুত্ব থেকে শুরু করে বাংলাদেশের অন্ধ জনগোষ্ঠীর সেবা নিশ্চিতের কথা জানান তিনি।

পূর্ব জার্মান বেতারের প্রতিনিধি মি. এ থোলের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘গণতন্ত্র, ধর্ম নিরপেক্ষতা ও সমাজতান্ত্রিক পদ্ধতির অর্থনীতি হবে মূল লক্ষ্য।’ পাকিস্তান জেল থেকে তাকে মুক্ত করা ও বাংলাদেশ মুক্তি সংগ্রামে সমর্থন-সহযোগিতার জন্য তিনি পূর্ব জার্মানি, সোভিয়েত ইউনিয়ন ও ইউরোপীয় দেশগুলোর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বঙ্গবন্ধু আরও বলেন, ‘ভারত আমাদের যে সহযোগিতা করেছে, তার জন্যও আমরা ভারতের নেত্রী ইন্দিরা গান্ধী, তার সরকার ও ভারতের জণগণের প্রতি কৃতজ্ঞ।’ এ সময় তিনি আরাও জানান— ভারত থেকে নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনকারী শরণার্থীদের পুনর্বাসনের জন্য বাংলাদেশের পুনর্বাসন দফতর এরইমধ্যে ব্যাপক পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে। সব শরণার্থী দেশে ফিরে আসবে বলেও তিনি মত প্রকাশ করেন।

বঙ্গবন্ধু প্রধানমন্ত্রী হতে চাননি

রাষ্ট্রপতি আবু সাঈদ চৌধুরীর বরাত দিয়ে ২০ জানুয়ারি দৈনিক বাংলায় প্রকাশিত ভূইয়া ইকবালের রিপোর্ট বলছে, তাকে রাষ্ট্রপতি আবু সাঈদ চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর মাথায় অন্য কাউকে প্রধানমন্ত্রী করার চিন্তা ছিল। কিন্তু আবু সাঈদ চৌধুরী শর্ত জুড়ে দিয়েছিলেন, বঙ্গবন্ধু প্রধানমন্ত্রী হলেই কেবল তিনি রাষ্ট্রপতি হওয়ার আহ্বানে সাড়া দেবেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু তাকে রাষ্ট্রপতি হওয়ার আহ্বান জানালে আবু সাঈদ চৌধুরী বিস্মিত হন। তিনি বঙ্গবন্ধুকে বলেন, ‘আমি সাধারণ নাগরিক হিসেবে সহযোগিতা করতে পারি।’ বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘এটা কার্যকরীভাবে সম্ভব নয়।’ আবু সাঈদ চৌধুরী বলেন, ‘আমি এই পদের যোগ্য বলে নিজেকে বিবেচিত করি না।’ বঙ্গবন্ধু এসময় বলেন, ‘আপনার যোগ্যতা নিয়ে আপনি সচেতন না হলেও আমরা দেশবাসী আপনাকে জানি।’ আবু সাঈদ চৌধুরী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তখন অন্য কাউকে প্রধানমন্ত্রী করার কথা ভাবছেন বলে আমাকে জানান। আমি তাকে বলি, একমাত্র তিনি প্রধানমন্ত্রী হলেই কেবল আমি রাষ্ট্রপতি হবো।’