বিকাল ৪:০৩, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







নির্বাচনের পরিবেশ সন্তোষজনক, মনে করছেন বিশ্লেষক ও সাধারণ মানুষ

লিয়ন মীর: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দল এবং হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সংগঠন ও বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার প্রতিনিধিদের দাবির মুখে শেষ পর্যন্ত ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ  ৩০ জানুয়ারি বদলে ১ ফেব্রয়ারি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এমনকি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন নিয়ে দুই সিটির দুই মেয়র প্রার্থীরও মনোভাব ইতিবাচক ছিলো।

পরিবর্তিত তারিখ ১ ফ্রেবুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনি মাঠের সার্বিক পরিবেশ সন্তোষজনক বলে মনে করছেন দুই সিটির সাধারণ মানুষ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। সমাধান হওয়া তারিখ জটিলতা ছাড়া আর কোনো সমস্যা এখন পর্যন্ত ভোটারদের চোখে পড়েনি বলে তারা জানান।

প্রচারে বাধা, ছোট-খাটো হামলার কিছু বিছিন্ন ঘটনা, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ বাদ দিলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করার মতো কোনো ঘটনা নেই বলেও তারা জানান। তবে বিএনপি নানান উপায়ে নির্বাচন বিতর্কিত করার অপচেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা বলেছেন,, যেকোনো উপায়ে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করতে পারলে বিএনপির লাভের পাল্লা ভারি হবে। কিন্তু জনগণ যদি সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারে তাহলে বিএনপির অপচেষ্টা হালে পানি পাবে না। বরং তারা মানুষের কাছ থেকে আরো দুরে চলে যাবে।

নির্বাচনের পরিবেশ জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩৩নং ওয়ার্ডের ভোটার রহমত মোল্লা (৪০) বলেন, অতীতের তুলনায় এবারের পরিবেশ অনেকটা ভালো। কোথাও কোনো মারামারি নেই, কোনো সমস্যা দেখা যাচ্ছে না। আগে তো  নির্বাচন এলেই মানুষ ভয়ে থাকতো কখন কী হয়। কিন্তু এবার সবাই শান্তিপূর্ণভাবে প্রচার চালাচ্ছে। আশাকরি ভোটের মাঠেও কোনো সমস্যা হবে না।

উত্তরার ভোটার সেলিনা বেগম (৫০) তিনি এসেছিলেন বাজার করতে। তার কাছে ভোট সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি খুব উচ্ছাস নিয়ে বলেন, মেয়র হচ্ছে নগর পিতা। তার ওপর সব দায়িত্ব তাই ভোট দিয়ে সঠিক মেয়র নির্বাচন করাটাও আমাদের দায়িত্ব। তাই অভিজ্ঞ এবং সৎ প্রার্থীকে ভোট দেবো। নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চাইলে এই গৃহীনি বলেন, কোনো সমস্যা দেখছি না। শহরে একটা উৎসব উৎসব ভাব এসেছে। প্রতিটি নির্বাচন এমন হলে ভালো হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাবেক দুই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ঢাকা উত্তর  ও দক্ষীণ সিটি নির্বাচনের যে পরিবেশ এখন পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে সেটা অতি সন্তোষজনক। এভাবে যদি ভোটের দিন পর্যন্ত থাকে তাহলে একটা ভালো নির্বাচন হবেই। মানুষের মনে নির্বাচন নিয়ে একটা ইতিবাচক ধারণা তৈরি হবে। সেটা হবে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের একটা সফলতা।