সকাল ১০:৫১, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







বিচারহীনতার সংস্কৃতি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে

লিয়ন মীর: ৩২ বছর আগে ১৯৮৮ সালের ২৪ জানুয়ারি চট্রগ্রামের লালদীঘি ময়দানে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও বর্তমান প্রধনমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টায় জনসভায় নির্বিচারে গুলিচালিয়ে ২৪ জনকে হত্যার ঘটনায় ‘চট্রগ্রাম গণহত্যা’ মামলায় সাবেক পাঁচ পুলিশ সদস্যকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। এছাড়াও একই দিনে সোমবার (২০ জানুয়ারি) ১৯ বছর আগে ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমলে ঢাকার পল্টন ময়দানে বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টির (সিপিবি) সমাবেশে বোমা হামলায় পাঁচজনকে হত্যা মামলায় ১০ আসামিকে মৃত্যুদন্ডের রায় দিয়েছে বিচারিক আদালত।

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর আদালতের এই রায়ে সন্তোস প্রকাশ করেছে আওয়ামী লীগ ও সিপিবি। এছাড়াও ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা রায়ে সন্তোস প্রকাশ করে দ্রুত রায় বাস্তবায়ন করার আহ্ববান জানিয়েছেন আদালতের প্রতি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক, মানবাধিক কর্মী ও নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা এই রায়কে ঐতিহাসিক রায় হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। তাদের মতে, শেখ হাসিনা সরকারের আমলে বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে আদালত এবং রায় বাস্তবায়ন করেছে। যার মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশে যে বিচারহীনতার কলঙ্কজনক সংস্কৃতি গেড়ে বসেছিলো সেটা মুছে যাওয়ার পথ খুজে পেয়েছে। এবার একই দিনে ইতিহাসের জঘন্য দুই হত্যা মামলার রায়ের মাধ্যমে সেই গতি আরো ত্বরান্বিত হয়েছে। এসব ঐতিহাসিক রায়ের মধ্যে দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের বিচারহীনতার সংস্কৃতি উঠে যাচ্ছে। সরকার যদি এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখে তাহলে দেশে বিচারহীনতা সংস্কৃতি পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাবে বলে তরা মনে করছেন।

দালাল আইন বাতিল করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ রাখা। আবার আইন করে (ইনডেমনিটি জারি) জাতির পিতা বঙ্গবঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যার বিচার বন্ধ রাখা। জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার না হওয়া। যার ফলে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ বিচারহীনতার মধ্যে দিয়েই যাত্রা শুরু করেছিলো। গুরুত্বপূর্ণ এসব হত্যার বিচার না হওয়ার কারণে দেশে বিচারহীনতার লজ্জাজনক কলঙ্কময় সংস্কৃতি হাটু গেড়ে বসে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসিতে ঝুলিয়েছে (এখনো চলছে), বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করেছে, জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার করেছে। এছাড়াও অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ হত্যা মামলার বিচার করেছে। যার ফলে বিচারহীনতার কলঙ্ক থেকে বাঙালি জাতি মুক্তি পেয়েছে। এই ধারা অব্যাহত থাকলে বিচারহীনতার সংস্কৃতি বন্ধ হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।