বিকাল ৫:৫৭, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







মাইলফলক গড়ে তামিম রানআউট ৩৯ রানে

প্রথম ৬ ছয় ওভারে ৩৫ রান। শুরুর ১০ ওভার শেষ হতে স্কোর দাঁড়াল ৬২ রানে। টি-টোয়েন্টির বিচারে শুরুর ৬০ বলে স্কোরবোর্ডে এই রান মোটেও সন্তোষজনক কিছু নয়। স্বস্তি শুধু একটাই এই দীর্ঘ সময়টায় বাংলাদেশ কোনো উইকেট হারায়নি।

টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বাংলাদেশের শুরুর এই ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছিল ওয়ানডে চলছে! শুরুর ১০ ওভারে উইকেট না হারালেও বাংলাদেশ ঠিক যাকে বলে ব্যাট হাতে শাসন করা সেটা করে দেখাতে পারেনি।

দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও মোহাম্মদ নাঈমকে এই সময় রান তুলতে বেশ কষ্ট করতে হয়। হাতে উইকেট অক্ষত থাকলে তো ছক্কা-চার হাঁকাতে হয়! কিন্তু শুরুর ১০ ওভারে বাংলাদেশের ৬২ রানে বাউন্ডারি ছিল মাত্র ৭টি। ছক্কা একটি।

তামিম ইকবাল ৩১ বলে ৩১। মোহাম্মদ নাঈম ২৯ বলে ২৯। শুরুর ১০ ওভার শেষে বাংলাদেশের দুই ওপেনারের এমন ‘নরম সরম’ ব্যাটিংয়ে স্কোরবোর্ডের স্বাস্থ্যটা সমৃদ্ধ হলো না। রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টা চালালেন তামিম ইকবাল ইনিংসের ১১ নম্বর ওভারে। ইমাদ ওয়াসিমের করা সেই ওভারে দ্বিতীয় রান নিতে গিয়ে তামিম ইকবাল রান আউট হয়ে ফিরলেন। ৩৪ বলে ৩৯ রানে শেষ হলো তামিমের কষ্টকর ইনিংসটা! ৭১ রানে প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ৩৯ রানের এই ইনিংসেই তামিম পেরিয়ে যান ব্যক্তিগত একটি মাইলফলক। টি- টোয়েন্টিতে এখন বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রানের মালিক এই ওপেনার। ৭৬ ম্যাচে এখন তার রান ১৬৫২।

ইনিংসের ওভার দ্রুত শেষ হয়ে আসছে। হাতে উইকেট জমা আছে ৯টি। তাই ওয়ানডাউনে লিটন দাস নামলেন। লক্ষ্য একটাই- মেরে কেটে রান বাড়ানো। অপরপ্রান্তে মোহাম্মদ নাঈমও সেই টার্গেট নিলেন। শাদাব খানের তৃতীয় ওভারে সামনে বেড়ে চমৎকার ছক্কা হাঁকালেন নাঈম। ১৩ ওভার শেষে দলের স্কোর পৌঁছাল ১ উইকেটে ৮৭ রানে। যে ধীর গতিতে বাংলাদেশের স্কোর সামনে বাড়ছিল তাতে ১৫০/১৬০ রানকে খুব দূরের কিছু মনে হচ্ছিল না।