দুপুর ১২:০৯, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সিরাজগঞ্জে বাবার বিরুদ্ধে কন্যাকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ

সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে পিতার দ্বারা যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে এক কিশোরী। গত এক বছর ধরে সে এই নির্যাতনের শিকার হলেও সে পারিবারিকভাবে কোন প্রতিকার পায়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। অবশেষে সে তার এই নির্যাতনের ঘটনা এলাকাবাসীকে জানালে বুধবার বিকালে গ্রাম্য সালিস বসে। সালিস বৈঠকে এই কিশোরী তার উপর নির্যাতনের বর্ণনা দিলেও সেখানে উপস্থিত হয়নি অভিযুক্ত পিতা মনিরুল ইসলাম। এ অবস্থায় কিশোরীকে স্থানীয় এক মহিলা ইউপি সদস্যের হেফাজতে রাখা হয়েছে।

কিশোরীর পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর আগুরিয়া গ্রামের মনিরুল ইসলাম প্রায় ১২ বছর আগে তার প্রথম স্ত্রীকে তালাক দিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করে। এরপর সে তার প্রথম স্ত্রীর গর্ভে দুই শিশু সন্তানকে দত্তক দেওয়ার চেষ্টা করে। ২ বছরের শিশু কন্যাকে অন্যত্র দত্তক দিলেও তিন বছর বয়সী বড় মেয়েটিকে দত্তক দিতে পারেনি। শিশুটির বয়স যখন ১৩ পেরিয়েছে তখন থেকেই তার বাবার নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে জানা গেছে।

নির্যাতিতা কিশোরী (১৫) বুধবার দুপুরে এই প্রতিবেদককে জানায়, গত এক বছর আগে থেকেই মাঝে মধ্যেই তার বাবা যৌন নির্যাতন শুরু করে। সতমায়ের অনুপস্থিতিতে তার এই নির্যাতনের মাত্রা আরো বেড়ে যেতো। যৌন নির্যাতনের এই ঘটনাটি কারো কাছে প্রকাশ করলে তার হাত পা বেঁধে নদীতে ভাসিয়ে দেবে বলে ভয় দেখায় তার বাবা।

ওই কিশোরী আরো জানায়, এর পরেও তার দাদী ও দাদাকে বিষয়টি সে জানিয়েছে কিন্ত কোন ব্যবস্থা নেওয়া তো দূরের কথা উল্টো তাকেই আরো ভয়-ভীতি দেখিয়ে তার মুখ বন্ধ রাখার চেষ্টা চালিয়েছে তার দাদা-দাদী। কোন উপায় না পেয়ে ২ সপ্তাহ আগে স্থানীয়দের সহায়তায় অন্যের বাড়িতে কাজ করতে গিয়েছিলো সে। সেখান থেকেও তার বাবা তাকে ধরে এনেছে। কান্নাজড়িত কন্ঠে কিশোরীর এমন অবস্থা হতে মুক্তির জন্য সবার সহায়তা কামনা করে।

এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর বুধবার দুপুরে গ্রাম্য সালিস ডাকলেও সেখানে উপস্থিত হননি অভিযুক্ত পিতা মনিরুল ইসলাম। অবশেষে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানানো হলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত না নেওয়া পর্যন্ত নির্যাতিত কিশোরীকে স্থানীয় মহিলা ইউপি সদস্য আকলিমা খাতুন এর হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

এ ব্যাপারে কিশোরীর পিতা মনিরুল ইসলাম দাবি করেন তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ মিথ্যে ও বানোয়াট। তিনি বলেন, আমার তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রী আমার মেয়েকে আমার বিরুদ্ধে এসব শিখিয়ে আমাকে বিপদে ফেলার চেষ্টা করছে।

স্থানীয় রাজাপুর ইউনিয়নের ৮নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্দুর রশিদ জানান, কিশোরীর বাবা মনিরুলের এমন বিকৃত আচরণ আমাদের ব্যথিত এবং বিস্মিত করেছে। বর্তমানে মেয়েটির বাবা ও পরিবারের সদস্যরা পলাতক রয়েছে। আমরা বিষয়টি নিয়ে আইন গত ব্যবস্থা গ্রহনের পাশাপাশি তার শাস্তি দাবি করছি।