সকাল ১০:৪২, ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ







বাগমারায় লোকবল সংকটে বন্ধ প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র

বিশেষ প্রতিনিধি:  কেবল নাম বহন করছেন প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র। এক সময় সবই ছিল প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রে। একজন কৃত্রিম প্রজনন সহকারী না থাকায় কয়েক বছর থেকে বন্ধ রয়েছে ইউনিয়ন প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র। যেখানে লোকজন গরু-ছাগলসহ গৃহপালিত পশুপাখি নিয়ে আসতেন নানা রকম চিকিৎসা করাতে। উপজেলা পশু হাসপাতালের ন্যায় ইউনিয়ন প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রে সেবা পাওয়া যেত।

উপজেলা পশু হাসপাতাল অনেক দূরে হওয়ার কারনে লোকজন আগের মতো হাতের কাছে আর সেবা পাচ্ছেন না। এতে অনেক সমস্যার মুখেও পড়তে হচ্ছে পশুখামারীসহ যারা সখের বসে বাড়িতে পশু পালন করে চলেছেন তাদের। উপজেলাজুড়ে মাত্র তিনটি ইউনিয়নে রয়েছে প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র। প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রগুলো হলো শ্রীপুর ইউনিয়নের সাদোপাড়া, যোগীপাড়া ইউনিয়নের নখোপাড়া এবং গাট-গাঙ্গোপাড়া। ওই সকল প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রগুলো থেকে লোকজন কৃত্রিম প্রজননের পাশাপাশি গরু, মহিষ, ছাগল সহ গৃহপালিত পশুর চিকিৎসা পেতেন। বিশেষ করে যারা এই পদে দায়িত্ব পালন করতেন তাদের চাকুরীর মেয়াদ শেষ হওয়ার কারনে বন্ধ রয়েছে প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রগুলো। এতে করে বিপাকে পড়েছেন লোকজন।

সাদোপাড়া গ্রামের সোহেল রানা, আব্দুল মান্নান সহ অনেকে বলেন, আগে গরু কিংবা ছাগল যেটারই রোগব্যাধি হোক আমরা ইউনিয়ন প্রাণিসম্পদ অফিসে নিয়ে গেলে সুচিকিৎসা পেয়েছি। বেশ কয়েক বছর থেকে চিকিৎসক না থাকায় বন্ধ রয়েছে প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র। অল্প খরচে এখান থেকে গাভীর কৃত্রিম প্রজননের পাশাপাশি অনেক রোগের চিকিৎসা পেতাম। উপজেলা পশু হাসপাতাল অনেক দূরে হওয়ায় সেখানে যাওয়া সম্ভব হয় না। বাহিরের লোকজনদের কাছে গৃহপালিত পশুর চিকিৎসা করাতে গেলে অনেক টাকা লাগে।

এদিকে দীর্ঘদিন চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় নষ্ট হয়ে গেছে প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রের চারপাশ। স্থানীয় লোকজন তাদের ইচ্ছা মতো ব্যবহার করছেন ইউনিয়ন প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রটি। এলাকাবাসীর দাবি দ্রুত সময়ের মধ্যে এই প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রটি চালু করার। এতে অল্প খরচে গৃহপালিত পশু-পাখির চিকিৎসা করাতে পারবেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ এস.এম. মাহবুবুর রহমান বলেন, আগে ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রের মাধ্যমে বিভিন্ন রকমের পশু-পাখির কৃত্রিম প্রজননের পাশাপাশি নানান রোগের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হতো। উপজেলার তিনটি প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রের কৃত্রিম প্রজনন সহকারী অবসরে যাওয়ায় এর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সম্প্রতি এই পদে দায়িত্বপ্রাপ্তদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রশিক্ষণ শেষ হলে তাদেরকে ইউনিয়ন প্রাণিসম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রে পাঠানো হবে।