সকাল ৭:৪০, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ







নিজেদের সবচেয়ে বড় সামরিক জাহাজ প্রকাশ্যে আনলো ইরান

ইরানের নৌবাহিনী আনুষ্ঠানিকভাবে দেশটির সবচেয়ে বড় সামরিক জাহাজ প্রকাশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই একটি নৌ সামরিক মহড়ার সময় ওই জাহাজটির আত্মপ্রকাশ করে ইরান। খবর আল জাজিরার।

স্থানীয়ভাবে তৈরি করা এই রণতরীর নাম আইআরআইএস মাকরান। এই যুদ্ধজাহাজটি একসঙ্গে পাঁচটি হেলিকপ্টার বহন করতে সক্ষম। সামরিক মহড়ার সময় মিসাইল নিক্ষেপে সক্ষম আরেকটি জাহাজের সঙ্গে এটিও যোগ দেয়।

২২৮ মিটার দীর্ঘ যুদ্ধজাহাজটি আগে একটি তেল ট্যাংকার ছিল। তবে অনুসন্ধান ও উদ্ধার মিশন পরিচালনা, বিশেষ বাহিনী মোতায়েন, পরিবহনের প্রয়োজনীয় জিনিস সরবরাহ, চিকিৎসা সহায়তা এবং দ্রুতগামী নৌকাগুলোর ঘাঁটি হিসেবে কাজ করার জন্য লজিস্টিক সহায়তা দিতে এটার সংস্কার করা হয়।

ওমান সাগরে দুইদিনের এই সামরিক মহড়ায় সমুদ্রে সারফেস-টু-সারফেস ক্রুজ মিসাইল, সাবমেরিন থেকে মিসাইল ছোঁড়ার পাশাপাশি বিশেষ অভিযান পরিচালনা এবং মনুষ্যবিহীন বিমানের পরীক্ষা চালানো হবে।

ভারত মহাসাগরের উত্তরাঞ্চলে এডেন উপসাগরের বাবেল মান্দেব এবং লোহিত সাগরের মতো এলাকায় ইরানের সামরিক বাহিনীর অভিযানের সময় এই জাহাজ লজিস্টিক সাপোর্ট দেবে। এ ধরনের জাহাজকে ভ্রাম্যমাণ বন্দর বলা হয় এবং এমন সামুদ্রিক অভিযানের সময় জাহাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে থাকে।

জাহাজটির ডেকে হেলিকপ্টার, গানশিপ এবং ড্রোন ওঠানামা করতে পারবে। এছাড়া, নৌবাহিনীর জন্য হোভারক্রাফট থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের নৌযান বহন করতে পারবে। উত্তাল সমুদ্রের মারাত্মক প্রতিকূল অবস্থার ভেতরেও এ জাহাজ তার মিশন চালাতে পারবে।