দুপুর ১:২৯, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







তারেক জিয়ার দুর্নীতির ওপর তৈরি হচ্ছে প্রামাণ্যচিত্র

  • লন্ডনে সপরিবারে রাজকীয় জীবনযাপন

লন্ডনে পলাতক সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার দুর্নীতির ওপর তৈরি হচ্ছে প্রামাণ্যচিত্র। তার দুর্নীতির ওপর প্রামাণ্যচিত্রটি তৈরি করছে লন্ডনের একটি বহুল আলোচিত টেলিভিশন চ্যানেল স্কাই নিউজ।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর বেগম খালেদা জিয়া ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে হাওয়া ভবন খুলে সমান্তরাল সরকার গঠন করেছিলেন তারেক জিয়া। হাওয়া ভবন থেকে সরকার পরিচালনা করে দুই হাতে লুটপাট ও দুর্নীতি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে বিদেশে পাচার করেছেন তিনি। সাজাপ্রাপ্ত হয়ে লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার কোন ব্যবসা বাণিজ্য না থাকার পরও রাজকীয় জীবনযাপন করছেন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ের দুর্নীতির বরপুত্র তারেক জিয়ার দুর্নীতির উপাখ্যান নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে বলে জানা গেছে। গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রের খবর।

বাংলাদেশে ২০০১-০৬ সাল পর্যন্ত অঘোষিতভাবে রাজত্ব করেছিলেন তারেক জিয়া। প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তার মা বেগম খালেদা জিয়া। কিন্তু হাওয়া ভবন থেকে একটি বিকল্প সরকার পরিচালনা করতেন তারেক জিয়া। প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে ছিল তার প্রতিনিধি হিসেবে মন্ত্রী কিংবা প্রতিমন্ত্রী। তারেক জিয়ার প্রতিনিধি মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রীরাই ছিলেন মূলত তার অঘোষিত রাজত্ব কায়েমের হাতিয়ার। বনানীর হাওয়া ভবনে তারেক জিয়ার সরকার পরিচালনার অফিস। হাওয়া ভবনে বসেই প্রতিটি মন্ত্রণালয়ের কাজকর্মের ভাগ দিতে হতো তাকে। তখন তারেক রহমানের নামের সঙ্গে চালু হয়েছিল মি. টেন পার্সেন্ট। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে হাওয়া ভবন খ্যাত দুর্নীতির বরপুত্র খ্যাতি লাভ করেন তারেক জিয়া।

গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, এক যুগের বেশি সময় ধরে লন্ডনে পলাতক জীবনযাপন করছেন তিনি। কিন্তু লন্ডনে তার কোন ব্যবসা বাণিজ্য নেই। অথচ আছেন রাজকীয় হালে। এটা কিভাবে সম্ভব? লন্ডনের মতো ব্যয়বহুল শহরে একজন বেকার মানুষ সপরিবারে রাজকীয় জীবনযাপন করার রহস্য কি? বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে মা বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে দুই হাতে দেশের টাকা পয়সা লুটপাট করে বিদেশে পাচার করে দেন তিনি। শুধু তাই নয়, তার প্রয়াত ছোট ভাই আরাফাত রহমান কোকোও দেশের টাকা পাচার করে মালয়েশিয়ায় গিয়ে বিলাস বহুল জীবনযাপন করেন। আরাফাত রহমান কোকোর পাচার করা সিঙ্গাপুরের একটি ব্যাংক থেকে ২১ কোটি ৫৫ হাজার টাকা তিন দফায় দেশে ফেরত আনা হয় বলে জানা গেছে। তারেক জিয়া ও আরাফাত কোকো দুই ভাই-ই লুটপাট ও দুর্নীতির মাধ্যমে টাকা পাচার করার কাহিনী নিয়েই তৈরি হচ্ছে প্রামাণ্যচিত্র।

গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, লন্ডনের একটি বহুল আলোচিত টেলিভিশন চ্যানেল স্কাই নিউজ তারেজ জিয়ার দুর্নীতির ওপর একটি প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করছে। শুধু তারেক জিয়াই নয়, বিভিন্ন দেশ থেকে লুটেরা, দুর্নীতিবাজ এসে লন্ডনে অবস্থান গ্রহণ করেছেন তাদের ওপর একটি ধারাবাহিক প্রতিবেদন করার প্রকল্প হাতে নিয়েছে স্কাই নিউজ। তারেক জিয়া ছাড়াও ভারতের দুর্নীতিবাজ বিলিয়নিয়ার বিজয় মালিয়াসহ আরও কয়েকটি দেশের দুর্নীতিবাজ নাগরিকের ওপর প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করা হচ্ছে। এসব দুর্নীতিবাজ লন্ডনের মতো বিলাস বহুল শহরে কিভাবে থাকছেন? কিভাবে তারা জীবন-যাপন করছে সেই সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে স্কাই নিউজের এই অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে। স্কাই নিউজের সম্পাদকীয় বোর্ডের কাছে দুর্নীতির ওপর তৈরি প্রতিবেদনগুলো উপস্থাপন করা হবে। স্কাই নিউজের সম্পাদকীয় বোর্ডের অনুমতি পেলেই ধারাবাহিকভাবে প্রতিবেদনগুলো প্রচারিত হবে বলে জানা গেছে।

লন্ডনের স্কাই নিউজের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হচ্ছে যে ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনের সময় তারেক জিয়া গ্রেফতার হন। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে তিনি বিভিন্ন দুর্নীতির কথা স্বীকার করেছেন। ২০০৮ সালে তিনি মুচলেকা দিয়ে জামিনে মুক্ত হন। মুচলেকা দিয়েছিলেন যে, তিনি আর কোনদিন রাজনীতি করবেন না। এরপর তিনি লন্ডনে যান এবং সেই থেকে লন্ডনে বসবাস করছেন। লন্ডনে থেকেই তিনি বাংলাদেশে বিরোধী বিভিন্ন তৎপরতা চালাচ্ছেন। এছাড়াও তার সঙ্গে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক জঙ্গী এবং সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে তার যোগাযোগ আছে বলে যে অভিযোগ আছে সেই বিষয়েও প্রামাণ্যচিত্র প্রস্তুতকারকরা খোঁজ খবর নিচ্ছেন।

লন্ডনের স্কাই নিউজের অনুসন্ধানী চিত্রে উঠে এসেছে, ২০০১-০৬ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রের এমন কোন খাত ছিল না যেখানে তারেক রহমান হস্তক্ষেপ করেননি। হাওয়া ভবন কেন্দ্রিক ছায়া সরকার ছিল রাষ্ট্রের পাওয়ার হাউস আর এখান থেকে সবকিছুর বিকিকিনি চলেছে টাকার হিসাবে। স্ত্রী, কন্যা, শাশুড়ি এবং বন্ধুদের নামে সম্পদের পাহাড় গড়ার পর অবৈধ উপায়ে অর্জিত হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পদের তথ্য আড়াল করে শুরু হয় অর্থপাচার ও বিদেশে সম্পদ ক্রয়ের পালা। অনুসন্ধানে দেখা যায় ২০০২ সাল থেকে তারেক রহমানের বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ শুরু হয়। জিয়া পরিবার অর্থ পাচার ও পাচারকৃত অর্থ বিনিয়োগের জন্য সিঙ্গাপুরে দুটি কনসোর্টিয়াম গঠন করেছিল। একটি থাইল্যান্ড কেন্দ্রিক তারেক রহমানের মালিকানাধীন কনসোর্টিয়াম যার অন্যতম সদস্য ছিল থাইল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রা। এ পরিবারের অপর কনসোর্টিয়ামের নাম তঅঝত (জাফিয়া, আরাফাত, শর্মিলা, জাহিয়ার নামানুসারে) কনসোর্টিয়াম। আরাফাত রহমান কোকোর মালিকানাধীন এ কনসোর্টিয়াম ২৪টি কোম্পানির সমন্বয়ে গঠিত হয়েছিল, যার একটি দাউদ ইব্রাহিমের ডি কোম্পানি। এই অর্থপাচার এতটাই সন্দেহজনক ছিল যে যুক্তরাষ্ট্র কেন্দ্রিক আন্তর্জাতিক মানি লন্ডারিং পর্যবেক্ষক সংস্থা ও গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যের ভিত্তিতে তারেক রহমানের যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করে মার্কিন প্রশাসন।

এফবিআইয়ের তদন্তে উঠে এসেছে যে, তারেক ও মামুন তাদের সিঙ্গাপুরের একটি ব্যাংক এ্যাকাউন্টে নির্মাণ কন্সট্রাকশন লিমিটেডের পরিচালক এবং চীনের হারবিন ইঞ্জিনিয়ারিং কন্সট্রাকশনের এ দেশীয় এজেন্ট খাদিজা ইসলামের কাছ থেকে সাড়ে ৭ লাখ মার্কিন ডলার ঘুষ নিয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিসের মাধ্যমে তারেক রহমানের ১২ কোটি টাকা দেশে ফেরত আনা সক্ষম হয়েছিল। সিঙ্গাপুরের সিটিএনএ ব্যাংকে পাচারকৃত ২১ কোটি টাকার মধ্যে ৮ কোটি টাকা দেশে ফেরত আনা হয়। একইভাবে লন্ডনের ব্যাংকে প্রায় ছয় কোটি টাকা জব্দ করা হয়েছে।

বেলজিয়ামে তারেকের সম্পত্তির পরিমাণ ৭৫০ মিলিয়ন ডলার, মালয়েশিয়ায় ২৫০ মিলিয়ন ডলার এবং দুবাইতে রয়েছে কয়েক মিলিয়ন ডলার মূল্যের বাড়ি (বাড়ির ঠিকানা : স্প্রিং ১৪, ভিলা : ১২, এমিরেটস হিলস, দুবাই)। সৌদি আরবে মার্কেটসহ অন্যান্য সম্পত্তির কিছু বিবরণ পাওয়া যায় প্যারাডাইস পেপারসে। প্যারাডাইস পেপারের সূত্রে জানা যায়, তারেক জিয়া ২০০৪ এবং ২০০৫ সালে কেইম্যান আইসল্যান্ড এবং বারমুডায় ২ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেন। প্যারাডাইস পেপার কেলেঙ্কারিতে তারেক রহমান ছাড়াও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমান, বেগম জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার, তার স্ত্রী এবং বেগম জিয়ার প্রয়াত ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমানের নাম উঠে এসেছে। লন্ডনের স্কাই নিউজের অনুসন্ধানে এসব তথ্য বহুল চিত্র উঠে আসার পর তারেক জিয়ার দুর্নীতির ওপর প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করা হচ্ছে।

গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা অনেক মামলার মধ্যে মুদ্রা পাচারের মামলায় হাইকোর্টের রায়ে ৭ বছরের দণ্ডাদেশ হয়। এরপর জিয়া এতিমখানা দুর্নীতি ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় মা বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তারেক জিয়ার কারাদণ্ডের রায় হয়। খালেদা জিয়ার হয় পাঁচ বছর কারাদণ্ড ও তারেক জিয়ার হয় ১০ বছর সাজা। আগের দুটি মামলায় তার যথাক্রমে ৭ ও ১০ বছর কারাদণ্ড হলেও তা ছাপিয়ে একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার মামলায় তার সাজা হয়েছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে অন্যতম কলঙ্কজনক অধ্যায় একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার মামলাটি। এই মামলাটিতে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হলেও তাকে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডদানের দাবি জানিয়ে মিছিল ও সমাবেশ করার মতো ঘটনাও ঘটেছে। তারেক জিয়া যাবজ্জীবন সাজা নিয়ে লন্ডনে বসবাস করে কাতার ভিত্তিক টেলিভিশন আলজাজিরাকে ভাড়া নিয়ে বাংলাদেশ বিরোধী প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করে তা প্রচার করানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। সরকার ও সেনা বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করে আলজাজিরায় প্রচার করানোর অভিযোগের বিষয়টিও তদন্তনাধীন বলে জানা গেছে।

গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, তারেক জিয়ার দুর্নীতির ওপর লন্ডনের স্কাই নিউজ যে প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করছে তাতে লন্ডনে আয় রোজগারের পথ ছাড়াও তিনি কিভাবে বিলাসবহুল ও রাজকীয় জীবনযাপন করছেন তার চিত্র দেখানো হবে। লন্ডনের স্কাই নিউজের প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করার অনুসন্ধানে দেখা গেছে যে, লন্ডনে তারেক জিয়ার চারটি বিলাসবহুল গাড়ি ব্যবহার করেন। তিনি কিংস্টনের একটি বিলাসবহুল বাড়িতে থাকেন এবং তার কোন বৈধ আয় না থাকা সত্ত্বেও তিনি সেখানে রাজকীয় জীবনযাপন করেন। স্কাই নিউজের ঐ অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এটাও দেখা যাচ্ছে যে, তারেক জিয়া প্রতি সপ্তাহে একাধিক ক্যাসিনো ক্লাবে যান এবং সেখানে তিনি প্রচুর টাকার জুয়া খেলেন। করোনা পরিস্থিতির আগে তারেক জিয়া একাধিকবার নাইট ক্লাবে গিয়েছিলেন, সেই তথ্যও স্কাই নিউজের হাতে এসেছে। এছাড়াও তারেক জিয়ার এক ধরনের উচ্ছৃঙ্খল জীবনযাপনের চিত্র এই প্রামাণ্যচিত্রে ফুটে উঠেছে বলে গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে।

গোয়েন্দা সংস্থার একজন কর্মকর্তা বলেন, তারেক জিয়া শুধু একাই নয়, বিদেশ থেকে যারা লন্ডন এসেছেন এবং অকল্পনীয় রাজকীয় জীবনযাপন করছেন তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধেই নিজ দেশ থেকে দুর্নীতি ও অর্থ লুটপাট করার অভিযোগ আছে তাদের নিজের দেশের সরকারের কাছে। লুটপাট ও দুর্নীতির মাধ্যমে আয় রোজগার করে সেই টাকা বিদেশে বা লন্ডনে পাচার করা কিভাবে সম্ভব হয়েছে? বৈধতা ছাড়াই কিভাবে তারা লন্ডনে অবস্থান করছেন? এই ধরনের প্রকল্প হাতে নিয়েছে লন্ডনের বহুল আলোচিত স্কাই নিউজ টেলিভিশন চ্যানেল। তারেক জিয়া ছাড়াও অন্যান্য দেশের যেসব লুটপাটকারী অর্থ পাচার করে লন্ডনে বিলাসবহুল ও রাজকীয় জীবনযাপন করছেন তাদের ওপর প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করা হচ্ছে এমন খবর প্রচারের পর রীতিমতো হৈ চৈ পড়ে গেছে বলে গোয়েন্দা কর্মকর্তার দাবি।

সুত্র: জনকন্ঠ