রাত ৪:৫২, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ







জাদুঘরে রূপ নিচ্ছে ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেন

পুরান ঢাকার টিকাটুলির কে এম দাস লেনে কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে রোজ গার্ডেন নামের ভবনটি। এখান থেকে পথচলা শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দেয়া ও উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের।

আওয়ামী লীগের আঁতুড়ঘর হিসেবে পরিচিত রোজ গার্ডেন সরকার কিনে নেয়ার আড়াই বছরের বেশি সময় পর সেটিকে জাদুঘরে রূপ দেয়া ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন হিসেবে সংরক্ষণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

এ সংক্রান্ত একটি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) তৈরি করেছে সরকার। এ সপ্তাহের মধ্যেই প্রকল্প প্রস্তাবনাটি পাঠানো হবে পরিকল্পনা কমিশনে। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তবে জাদুঘর তৈরির কাজ কবে থেকে শুরু হবে, সে বিষয়ে নিশ্চিত করে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় কিছু জানাতে পারেনি। তবে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ব্যয় ধরা হয়েছে ২২ কোটি টাকা।

এ বিষয়ে জানাতে চাইলে মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আহমেদ শিবলী বলেন, ‘প্রকল্প প্রস্তুত হচ্ছে। অনুমোদনের জন্য চেষ্টা চলছে। অনুমোদন হলেই কাজ শুরু হবে। ওখানে একটা জাদুঘর করা, রোজ গার্ডেনকে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন হিসেবে সংরক্ষণ করা, আর ভেতরে দর্শনার্থীদের জন্য যে সুযোগ-সুবিধাগুলো দরকার, সেগুলো নিশ্চিত করা হবে।’

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রত্নতত্ত্ব ও জাদুঘর অধিশাখার যুগ্ম সচিব আতাউর রহমান বলেন, ‘ডিজাইনটা কয়েকবার প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়। ওনার কিছু নির্দেশনা ছিল। সবশেষ ডিজাইনসহ এটার ডিপিপি করা হয়। ডিপিপিটা সাবমিটও করা হয়েছে। পাস হলেই কাজ শুরু হবে।’

১৯৩১ সালে ওই সময়ের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ঋষিকেশ দাস নির্মাণ করেন রোজ গার্ডেন নামের ভবনটি। তবে সময় বদলের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টে গেছে ভবন ও ভূমির মালিকানা। হাত ঘুরে ওই সম্পত্তির মালিক এখন রাষ্ট্র নিজেই। ২০১৮ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর ৩৩১ কোটি ৭০ লাখ টাকা দিয়ে ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেন কিনে নেয় সরকার। ওই দিন গণভবনে মালিকের কাছ থেকে সম্পত্তি কেনার নিবন্ধিত দলিল গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই বছরের ৮ আগস্ট রোজ গার্ডেন কেনার প্রস্তাবে অনুমোদন দেয় সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। এরপর সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় মালিকের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে রোজ গার্ডেনের মূল্য ৩৩১ কোটি ৭০ লাখ টাকা নির্ধারণ করে।

রোজ গার্ডেনের দলিল গ্রহণের পর এটিকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করার ইচ্ছে পোষণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জন্য ১ হাজার ১ টাকা টোকেন মূল্যে সম্পত্তিটি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের কাছে হস্তান্তর করেন। ওই সময় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে বাড়িটির দলিল গ্রহণ করেন সে সময় সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি।

সুত্র: আর টিভি