দুপুর ১:০৮, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ







অতিরিক্ত ওজন হতে পারে মানসিক অসুস্থতার কারণ: গবেষণা

অতিরিক্ত ওজনের কারণে আপনি মানসিকভাবে অসুস্থ হতে পারেন। অতিরিক্ত ওজন হতাশার কারণ এবং সুস্থতা কমায়। একটি নতুন গবেষণায় বিষয়গুলি প্রমাণিত হয়েছে। এছাড়াও ওই গবেষণা থেকে আরও জানা যায়, ওজন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক এবং শারীরিক উভয় দিকেই একটা প্রভাব পড়তে পারে। গবেষণাটির ফলাফল ‘হিউম্যান মলিকুলার জেনেটিক্স’ জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

যুক্তরাজ্যে প্রতি চারজন প্রাপ্তবয়স্কের মধ্যে একজনের স্থূলতা দেখা যাচ্ছে। এই রোগে আক্রান্ত শিশুদের সংখ্যাও বাড়ছে। স্থূলতা বিশ্ব জুড়ে স্বাস্থ্যের প্রসঙ্গে একটা চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠছে। যদিও শারীরিক স্বাস্থ্যের উপর স্থূলকায় হওয়ার বিপদগুলি সুপরিচিত। গবেষকরা এখন আবিষ্কার করছেন যে- অতিরিক্ত ওজন মানসিক স্বাস্থ্যের উপরও উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে।

গবেষণায় অনুসন্ধানের চেষ্টা করা হয়েছিল যে, অতিরিক্ত ওজন মানসিক বিষণ্নতা সৃষ্টি করে কি না। দলটি জেনেটিক বিশ্লেষণ ব্যবহার করে, যা মেন্ডেলিয়ান র‍্যান্ডমাইজেশন নামে পরিচিত। এই পরীক্ষার কারণ ছিল এটা খোঁজা যে, উচ্চতর বিপাকক্রিয়া মানসিক অবস্থানের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত কি না। এই ধরনের অবস্থার মধ্যে রয়েছে উচ্চ রক্তচাপ, টাইপ-২ ডায়াবেটিস এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগ ইত্যাদি।
এক্সেটর ইউনিভার্সিটির নেতৃত্বে এবং মেডিকেল সায়েন্সেস একাডেমির অর্থায়নে গবেষণায়, দলটি ইউকে বায়োব্যাঙ্কের ১,৪৫,০০০ এরও বেশি অংশগ্রহণকারীর কাছ থেকে জেনেটিক ডেটা পরীক্ষা করে বিস্তারিত মানসিক স্বাস্থ্যের তথ্য সংগ্রহ করে।

একটি বহুমুখী গবেষণায়, গবেষকরা অতিরিক্ত ওজনের সাথে যুক্ত জেনেটিক বিকল্পতা বিশ্লেষণ করেছেন। সেই সঙ্গে বিষণ্ণতা, উদ্বেগ এবং সুস্থতার মাত্রা মূল্যায়নের জন্য ডিজাইন করা একটি ক্লিনিক্যালি রিলেটেবেল মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত প্রশ্নাবলী থেকে প্রাপ্ত উত্তরগুলিও যাচাই করে দেখা হয়। অতিরিক্ত ওজনসহ মানুষের মধ্যে বিষণ্ণতা সৃষ্টির জন্য কোন পথগুলি সক্রিয় হতে পারে তারও পরীক্ষা করা হয়। এই পরীক্ষার জন্য দলটি পূর্বে আবিষ্কৃত জিনের ভেরিয়েশনের দুইটি সেটকেও জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল।

জিনের একটি সেট মানুষকে মোটা করে তোলে, যদিও তারা বিপাকীয়ভাবে স্বাস্থ্যকর। এর ফলে তাদের অতিরিক্ত ওজনের সঙ্গে উচ্চ রক্তচাপ এবং টাইপ-২ ডায়াবেটিসের বিকাশের সম্ভাবনা কম ছিল। বিশ্লেষণ করা জিনের দ্বিতীয় সেট মানুষকে হয় মোটা এবং বিপাকীয়ভাবে অস্বাস্থ্যকর করে তুলেছে নতুবা এই ধরনের ঘটনা ঘটার বিশেষ প্রভাব দেখা গিয়েছে। দলটি জিনগত বিকল্পের দুটি সেটের মধ্যে সামান্য পার্থক্য খুঁজে পেয়েছে। যা ইঙ্গিত করে যে শারীরিক এবং সামাজিক উভয় কারণই বিষণ্ণতার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ইউনিভার্সিটি অফ এক্সেটর মেডিকেল স্কুলের প্রধান লেখক জেস ওলাফলিন বলেন, “স্থূলতা এবং বিষণ্ণতা উভয়ই বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য চ্যালেঞ্জ। আমাদের গবেষণায় আজ পর্যন্ত সবচেয়ে শক্তিশালী প্রমাণ পাওয়া যায় যে উচ্চতর বিএমআই বিষণ্নতার কারণ। শারীরিক বা সামাজিক কারণগুলি বুঝতে পারলেই এই ধরনের মানসিক রোগ থেকে মুক্তির সম্ভাবনা বাড়তে পারে।”

তিনি আরও বলেন, “আমাদের গবেষণায় বলা হয়েছে যে মোটা হওয়া বিপাকের ঝুঁকির দিকে নিয়ে যায়। বিপাকীয় স্বাস্থ্যের ভূমিকা যাই হোক না কেন এই ঝুঁকি আসবেই। এর থেকে বোঝা যায় যে শারীরিক স্বাস্থ্য এবং সামাজিক কারণ, যেমন মোটা হওয়ার যে সামাজিক ভীতি তার থেকেই স্থূলতা এবং বিষণ্ণতার মধ্যে একটা অদ্ভুত জটিল সম্পর্ক তৈরি হয়।”