রাত ৯:০৫, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







কাল বড়দিন, যিশুখ্রিষ্টের জন্মোৎসব

বড়দিন উদযাপনে আধ্যাত্মিক ও বাহ্যিক প্রস্তুতি সম্পন্ন, সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য, সুস্থতা, বিশ্বশান্তি কামনা।
বছরঘুরে হিম জড়িয়ে আবারও এলো বড়দিন, যিশুখ্রিষ্টের জন্মোৎসব। খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের কান্ডারি যিশুখ্রিষ্টের আগমনে, বাহ্যিক ও আধ্যাত্মিক প্রস্তুতি চালাচ্ছেন। সবার চাওয়া, করোনার বালাই দ্রুত বিদায় হোক পৃথিবী থেকে, সুস্থ ও নিরাপদ থাকুক সবাই। একইসঙ্গে গড়ে উঠুক সহনশীল, শ্রদ্ধাশীল, সম্প্রীতির পরিবেশ।

উৎসব শুরু হয় নির্দিষ্ট দিনক্ষণের আগেই। সেই আমেজ দ্যুতি ছড়াচ্ছে, খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের পরিবারের। তাই সাজসজ্জা, খাবার দাবার, কেনাকাটা, অতিথি আপ্যায়ন, অতিথি হয়ে অন্যের বাড়িতে বেড়ানো, এ সবেরই প্রস্তুতি প্রায় শেষ।একাল সেকালের বড়দিনের গল্পও চলে আসে কথায় কথায়।

বড়দিনের উৎসব উদযাপনের সঙ্গে জুড়ে থাকে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য। তাই আত্মিক প্রশান্তি জরুরি বৈকি। শান্তি তো সবার। তাই প্রার্থনাও অনুরূপ। সবার চাওয়া মহামারি থেকে সুস্থ হয়ে উঠুক বিশ্ব। গড়ে উঠুক সহনশীল ও সম্প্রীতির পরিবেশ।

এদিকে, বড়দিন বা ক্রিসমাসের সাজে সেজেছে রাজধানীর তারকা হোটেলগুলো। নির্দিষ্ট খরচের বিনিময়ে মূলত শিশুদের জন্য দিনভর রয়েছে নানা আয়োজনে অংশ নেবার সুযোগ।

২ হাজার বছরেরও বেশি সময় আগে, বর্তমান ইসরায়েলের বেথলেহেমে এক গোয়ালঘরে জন্ম নেন যিশুখ্রিষ্ট। খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, মানুষকে পুণ্যের পথ দেখাতে ঈশ্বর, যিশুকে মানবরূপে পৃথিবীতে পাঠিয়েছিলেন। তার এই আগমনকে স্মরণ করে খ্রিস্টানরা শ্রদ্ধা ভালোবাসায় বিশ্বব্যাপী তাকে স্মরণ করেন ও জাকজমকপূর্ণভাবে দিনটি উদযাপন করেন।