বিকাল ৩:০০, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







চীনের আন্তর্জাতিক ট্রেড ফেয়ারে বাংলাদেশি পণ্যের সফল প্রদর্শনী

‘সহযোগিতার জন্য নতুন সুযোগগুলো উপলব্ধি করুন এবং উন্নয়নের একটি নতুন যাত্রা শুরু করুন’ স্লোগানকে সামনে রেখে চীনে ইএইএফ ইকোনমিক অ্যান্ড ট্রেড কো-অপারেশন এক্সপো এবং চায়না (শানশি) আমদানি ও রপ্তানি পণ্য মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮ থেকে ২১ অক্টোবর  চীনের শানশি প্রদেশের রাজধানী শি’আন শহরে অবস্থিত শি’আন ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অ্যান্ড এক্সিবিশন সেন্টারে এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

আমদানি ও রপ্তানি পণ্য মেলা-২০২১ অনলাইন এবং অফলাইনে সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মেলাতে চীনে বাংলাদেশি ব্যক্তি মালিকানধীন কোম্পানি ইউ এক্সপোর্ট অ্যান্ড ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড বাংলাদেশি পাটজাত এবং হস্তশিল্পজাত পণ্য প্রর্দশন করে।

এ এক্সপো চীনের পশ্চিম অঞ্চলে প্রথম বৃহৎ আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্যের প্রদর্শনী। ইউরেশিয়ান ইকোনমিক ফোরামের সাংগঠনিক কমিটির সহয়তায়, শানশি প্রাদেশিক বাণিজ্য বিভাগের সমন্বয়ে মেলাটি শি’য়ান পৌর জনগণের সরকার আয়োজন করে।

বাংলাদেশি কোম্পানীর স্টলে প্রদর্শিত হয়েছে পাটজাত হস্তশিল্পের আকর্ষণীয় পণ্যসামগ্রী, পাটের তৈরি ব্যাগ, ঝুড়ি, উপহার সামগ্রী, মেয়েদের অলংকার সামগ্রীসহ অন্য পণ্যসামগ্রী। মেলাতে বাংলাদেশি পণ্যের প্রতি চীনা নাগরিকসহ অন্যান্য দেশের নাগরিকদের আগ্রহ দেখা যায়। তাছাড়া বাংলাদেশি স্টলে ছিল ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়।

মেলায় অংশগ্রহণকারী শি’য়ান শহরে বসবাসরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থী মো. খায়রুল এনাম বলেন, মেলায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির প্রদর্শনীগুলো খুব কাছ থেকে দেখা, কথপোকথন ও তথ্য সংগ্রহ করেছি। যার অনেক ধারণা লজিস্টিকস ইঞ্জিনিয়ারিং একজন ছাত্র হিসাবে আমাকে ভবিষ্যতে উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য অনুপ্রাণিত করেছে।

মেলায় প্রদর্শনী এলাকাটি ৭২০০০ হাজার বর্গমিটার এলাকাজুড়ে অবস্থিত। ১২০০টির বেশি কোম্পানি তাদের নিজস্ব বৈশিষ্ট্যযুক্ত পণ্যগুলো মেলায় প্রদর্শন করে। বিশ্বের শীর্ষ ৫০০ কোম্পানির মধ্যে ৪০টিরও বেশি কোম্পানি মেলায় অংশগ্রহণ করে।

বাংলাদেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রিস, চেক প্রজাতন্ত্র, উত্তর মেসিডোনিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, ভিয়েতনাম, ব্রিটেন, বেলজিয়াম, রাশিয়া, নেপাল, লাটভিয়া, অস্ট্রেলিয়া, উত্তর কোরিয়া, পাকিস্তান, আর্মেনিয়া, আফগানিস্তান এবং অন্যান্য দেশের স্থানীয় কোম্পানিগুলো নিজ নিজ দেশের পণ্য নিয়ে আমদানি ও রপ্তানি মেলাতে অংশগ্রহণ করে। দর্শনার্থীরা মনে করেন বাংলাদেশি পণ্য ভবিষ্যতে চীনা বাজারে ভালো সাড়া ফেলবে।