রাত ১০:৩৬, ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ‘শুভ বড়দিন’ আজ

আজ বড়দিন, যিশুখ্রিষ্টের জন্মোৎসব। এ উপলক্ষ্যে উৎসবের সাজে সেজেছে রাজধানীর গির্জাগুলো।
খ্রিষ্টযাগের প্রার্থনায় যোগ দিতে গির্জায গির্জায় ভক্তদের আগমন। সহিংসতা, অশুভ শক্তি, করোনা মহামারী থেকে মুক্তি চেয়ে, বিশ্বের শান্তির কামনায়, প্রার্থনায় মগ্ন হন খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা।

করোনা মহামারীর মধ্যেও নিয়মের আবর্তে ফিরে এসেছে খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব- বড়দিন। গির্জায় গির্জায় উৎসবের আমেজ। খ্রিষ্টযাগে যোগ দিতে পরিবার-পরিজন নিয়ে খ্রিষ্টভক্তরা সমবেত হন গির্জায়।

গির্জার ভেতরে ও বাইরে প্রার্থনারত ভক্তদের চাওয়া, যিশুখ্রিষ্টের আর্শীবাদে দূর হয়ে যাক সমস্ত অসঙ্গতি, শান্ত হোক ধরণী। খ্রিষ্টীয় চেতনায় উদ্দীপ্ত হয়ে সাম্য ও সম্প্রীতির বার্তা ভক্তদের কণ্ঠে।

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের পাশাপাশি উৎসব আনন্দে মেতে উঠছেন খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা। বর্ণিল আলোকের রোশনাইয়ে ভেসে যাচ্ছে গির্জা, গৃহ-দুয়ার আর অভিজাত হোটেলগুলো। সাজানো হয়েছে গো-শালা, ক্রিসমাস ট্রি আর বহুবর্ণ বাতি দিয়ে।

উৎসবের প্রধান আকর্ষণ হিসেবে সান্তাক্লজ আসবেন নানা উপহার ও চমক নিয়ে। দেশ-বিদেশের নানা জায়গায় সাজানো হয়েছে খিষ্টমাস ট্রি। এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীর তেজগাঁও ক্যাথলিক গির্জায় বড়দিনের বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়। কাকরাইলের রমনা সেন্ট ম্যারিস ক্যাথিড্রাল চার্চ ও মোহাম্মদপুরের সেন্ট ক্রিস্টিনা গির্জার ভেতরে ও বাইরে নানা রঙের বেলুন, নকশা করা ককশিট, রঙিন কাগজ, জরি ও ফুল দিয়ে সাজানো হয়েছে। বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে কৃত্রিম ‘ক্রিসমাস ট্রি’। গির্জা প্রাঙ্গণে থাকা গাছে ঝোলানো হয়েছে রংবেরঙের বাতি। গির্জার মূল ফটকের বাইরে বসেছে ছোটখাটো মেলা।

খ্রিষ্টধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিষ্ট এই দিনে (২৫ ডিসেম্বর) ফিলিস্তিনের বেথলেহেমে জন্ম গ্রহণ করেন। তার অনুসারী-খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা এ দিনটিকে ‘বড়দিন’ হিসেবে উদযাপন করে থাকেন। খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের মানুষরা বিশ্বাস করেন, সৃষ্টিকর্তার মহিমা প্রচারের মাধ্যমে মানবজাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত করতেই যিশুর পৃথিবীতে আগমন ঘটেছিল।