সন্ধ্যা ৬:১২, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







কুমারখালীতে জামাইয়ের অত্যাচারে অতিষ্ঠ শ্বশুর বাড়ির লোকজন

সামরুজ্জামান (সামুন), কুষ্টিয়া:  কুমারখালী জগন্নাথপুর ইউনিয়নের দয়রামপুর গ্ৰামে আবেদ আলী সর্দারের মেয়ে মোছাঃ হাসিনা খাতুন (৩০) বিয়ে হয় একি গ্ৰামের মেসের শেখের ছেলে রবিউল ইসলাম সাথে (৩৫)। তাদের সংসারে ২ টি সন্তান রয়েছে। এরপর হাসিনার বড় ভাইয়ের স্ত্রী কে বিয়ে করে রবিউল । তার পর থেকেই হাসিনার সংসারে অশান্তি শুরু হয় । কথায়- কথায় অমানুষিক নির্যাতন চলে হাসিনার উপর। কেও কোন প্রতিবাদ করতে সাহস পাইনা তার ভয়ে।

হাসিনার ভাই শহিদুল সর্দার বলেন, রবিউল আমার বড় ভাইয়ের স্ত্রী কে বিয়ে করে সংসার করছে। কিন্তু আমার বোনের কোন খোঁজ খবর নেয় না।

গত (২২) জানুয়ারি দিনের বেলায় আমাদেরকে হুমকি দেয় রবিউল, আমার পরিবারের সদস্যদের বেড় হতে দিচ্ছে না। পথ আটকে রাখে ।

সেই রাতে আমার ছানা তৈরির চুলা রাতের অন্ধকারে ভেঙে দেয়। এই ঘটনার পর (২৩) জানুয়ারী বাড়ির পাশের মোড়ে গেলে আমার উপরেও অতর্কিত হামলা চালায়।

হাসিনার অভিযোগ আমাকে ঠিক মতো ভরন পোষণ দেয়না রবিউল, যার কারণে আমি আমার ভাইয়ের ছানা ব্যাবসা সাহায্য করি। কিন্তু তিনি তা করতে দেবে না, তাই ছানা তৈরি চুলা ভেঙে দিয়েছে। আমার বড় ভাইয়ের স্ত্রী কে বিয়ে করে এখন সেই স্ত্রীকে নিয়ে থাকে। তাই আর আমাকে দেখতেই পারেনা।

কিছু বললেই আমার উপর অমানুষিক নির্যাতন করে। সেই কারণে আমি আমার বাবার বাড়িতে চলে আসি। এখন আমাকে আমার বাবার বাড়িতে থাকতে দিচ্ছে না। মানসিক ও শারীরিক অত্যাচারে অতিষ্ঠ আমি।

হাসিনা আরো বলেন, আমি বাপের বাড়ি থাকি সেই কারণে আমার ভাই উপর হুমকি ও মারধর করে তিনি। আমি ও আমার পরিবার ভয়ে থাকি আমি নিরাপদ চাই। এই বিষয়ে থানায় গেলে আমাদের মেরে বাড়ি ছাড়া করবে তাই থানাই অভিযোগ দেই নাই।

এই বিষয়ে রবিউল বলেন, খালি চুলা না আমি ইচ্ছা করলে যখন-তখন শহিদুল ও তার লোকজনকে আমি যা ইচ্ছা তাই করতে পারি। আমি ১০ টা বৌউকে খাওয়াতে পারি। এই এলাকার টুটাল গুষ্টি আমার। যা ইচ্ছা তাই করতে পারি। তবে আমি কোন মারধর করি নাই।