রাত ৮:১৬, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







আগামী বছরের মার্চে চালু হচ্ছে ফাইভ-জি, প্রাধান্য পাবে শিল্পখাত

ব্যক্তিগত ব্যবহারের চেয়ে শিল্পখাতে ফাইভ-জি ব্যবহারকে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে আগামী বছরের মার্চে বেসরকারি সব অপারেটরের মাধ্যমে ফাইভ-জি চালু করা হচ্ছে। অপারেটররা মনে করছেন, নতুন এই প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য এখনই প্রস্তুত নয় শিল্প খাতের উদ্যোক্তারা।

টেলিটকের পর বেসরকারি তিন অপারেটরের মাধ্যমে নতুন বছরেই দেশজুড়ে ফাইভ-জি চালুর পরিকল্পনা করা হচ্ছে। মার্চে তরঙ্গ নিলাম করতে চায় বিটিআরসি। সংস্থাটির মতে, ব্যবহারকারীদের ভিডিও স্ট্রিমিং কিংবা ডাটা ট্রান্সফারের জন্য মানসম্পন্ন ফোর-জি নেটওয়ার্কই যথেষ্ট। ব্যক্তি পর্যায়ে এখনই ফাইভ-জি ব্যবহারের গুরুত্ব তেমন একটা নেই। মূলত উৎপাদন কর্মকাণ্ডে এর সর্বোচ্চ ব্যবহারের প্রয়োজন আছে।

যেসব খাতে ফাইভ-জি ব্যবহারের হবে সেগুলোতে উদ্যোক্তারা এখনই এই প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত নয়। অপারেটররা মনে করেন, প্রত্যাশানুযায়ী ব্যবহারকারী না থাকায়, বাংলাদেশে ফাইভ-জির বাণিজ্যিক ব্যবহারের সুযোগ কম।

শুরুতে কৃষি, শিল্প, শিক্ষা ও চিকিৎসা খাতে ফাইভ-জি ব্যবহারের পরিকল্পনা করছে সরকার।
নতুন এই প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য এরইমধ্যে বেশ কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করেছে।
২০২৫-২৬ সাল নাগাদ ফাইভ-জির পূর্ণাঙ্গ সুবিধা উপভোগ করা যাবে।