ভোর ৫:৩৫, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







চলে গেলেন প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স

মানবজাতির ইতিহাসে প্রথম চন্দ্রাভিযানে অংশ নেয়া নভোচারী মাইকেল কলিন্স মারা গেছেন। ক্যানসারের সঙ্গে দীর্ঘদিন লড়াইয়ের পর বুধবার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন অ্যাপোলো ১১ চন্দ্রাভিযানের এই নভোচারী। এসময় তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর।

প্রায় ৫২ বছর আগে প্রথম চন্দ্রাভিযানের তিন সদস্যের মধ্যে একজন ছিলেন মাইকেল কলিন্স। তবে মিশনের বাকি দুই সদস্য চাঁদে নামলেও তিনি চাঁদের মাটি স্পর্শ করেননি। কমান্ড মডিউল পাইলট হিসেবে চাঁদের কক্ষপথেই ছিলেন তিনি। তার দুই সহঅভিযাত্রী নীল আর্মস্ট্রং ও এডুইন অলড্রিন চাঁদের মাটিতে পদার্পণ করেন।

চাঁদের কক্ষপথে প্রদক্ষিণকালে হঠাৎই তার সহ-অভিযাত্রী এমনকি নাসার কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে যোগাযোগ হারিয়ে ফেলেন কলিন্স। যদিও নির্দিষ্ট সময়েই আবার যোগাযোগ স্থাপিত হয়। পরে নির্বিঘ্নে পৃথিবীতে ফিরে আসেন তারা।

চন্দ্রাভিযানের আগে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনীর সদস্য ছিলেন কলিন্স। দুইবার চেষ্টার পর নাসায় নভোচারী হিসেবে সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। দক্ষ পাইলট হিসেবে তার খ্যাতি ছিল। তবে চন্দ্রাভিযানের সাফল্যে তিনি কোনোদিনই তার দক্ষতাকে গুরুত্ব দেননি।

২০০৯ সালে দ্য গার্ডিয়ানকে দেয়া সাক্ষাত্কারে কলিন্স বলেছিলেন, আমি ও আমার দুই সহঅভিযাত্রী কঠিন পেশা বেছে নিয়েছিলাম। আর সফলও হয়েছি। তবে আমার ক্ষেত্রে বলতে পারি যে মাত্র ১০ ভাগ পরিকল্পনামাফিক কাজ করেছি। বাকি ৯০ ভাগই ভাগ্য। আমার কবরে যেন ‘লাকি’ শব্দটা খোদাই করা থাকে!

উল্লেখ্য, বর্তমানে অ্যাপোলো ১১ অভিযানের মাত্র একজন সদস্য বেঁচে আছেন। তিনি হচ্ছেন এডুইন অলড্রিন। তার বয়স ৯১ বছর।