দুপুর ১:৩৯, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ







হেলেনা জাহাঙ্গীর সরকারবিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত: পুলিশ

আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটি থেকে সদ্য বহিষ্কৃত হেলেনা জাহাঙ্গীর গোপনে সরকারবিরোধী কার্যকলাপ ও পরিকল্পনায় লিপ্ত বলে অভিযোগ করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (৩০ জুলাই) ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) শেখ শাহানুর রহমান। রিমান্ড আবেদনে উল্লিখিত অভিযোগ করেন তিনি।

এদিকে, ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী হেলেনা জাহাঙ্গীরের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়,‘হেলেনা জাহাঙ্গীর ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী, দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সম্পর্কে মানহানিকর ও মিথ্যা তথ্য প্রকাশ ও প্রচারের মাধ্যমে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানো বা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন। জানা যায়, আসামি গোপনে সরকারবিরোধী কার্যকলাপ ও পরিকল্পনায় লিপ্ত। আরও জানা যায়, আসামির সঙ্গে কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এবং মহল দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়। মামলার ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি তা স্বীকার করলেও তার সঙ্গে জড়িত সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এবং দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টিকারী দল, গোষ্ঠী, সংস্থা সম্পর্কে কোনো তথ্য দেননি।’

মামলার সুষ্ঠু তদন্ত, হেলেনা জাহাঙ্গীরের সঙ্গে জড়িত সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এবং দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টিকারী দল, সংস্থা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উদঘাটন, তাদের শনাক্ত করে গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুরের আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবুসহ কয়েকজন রিমান্ড মঞ্জুরের পক্ষে শুনানি করেন। আসামির পক্ষে অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন।

শুনানি আদালত হেলেনা জাহাঙ্গীরের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‍্যাব-১-এর অভিযানে ২৯ জুলাই রাতে রাজধানীর গুলশান-২ এলাকার ৩৬ নং রোডের ৫ নং বাড়ি ‘জেনেটিক রিচমন্ড’-এ অভিযান পরিচালনার পর হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটক করা হয়। অভিযানে জব্দ করা হয় ১৯ বোতল বিদেশি মদ, ১টি ক্যাঙ্গারুর চামড়া, ১টি হরিণের চামড়া, ২টি মোবাইল ফোন, ১৯টি চেকবই ও বিদেশি মুদ্রা, ২টি ওয়াকিটকি সেট এবং জুয়া (ক্যাসিনো) খেলার সরঞ্জাম ৪৫৬টি চিপস। পরবর্তী সমযে মধ্যরাতে তার জয়যাত্রা টেলিভিশন স্টেশনেও অভিযান পরিচালনা করা হয়।

গৃহবধূ থেকে ব্যবসায়ী হয়ে সিআইপির (কমার্শিয়ালি ইমপর্টেন্ট পারসন) স্বীকৃতি পাওয়া এই ব্যবসায়ী সম্প্রতি তুমুল আলোচিত হয়ে ওঠেন ‘আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ’ নামে একটি সংগঠনের প্রচার চালাতে গিয়ে। আওয়ামী লীগের এই নামে কোনো সংগঠন নেই। সে জন্য তিনি এই সংগঠনকে সামনে নিয়ে আসার পর ক্ষমতাসীন দলের কর্মী-সমর্থকদের কাছ থেকে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েন। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগের পদ হারান হেলেনা। ক্ষমতাসীন দলের মহিলাবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্যপদ ছাড়াও কুমিল্লা উত্তর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টার পদ থেকেও অব্যাহতি দেয়া হয় তাকে। ওই ঘটনায় পিছুটান দেন হেলেনা। বলেন, তিনি ‘আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ’ নামে এই সংগঠনের কেউ না। তাকে সম্প্রতি সভাপতি হওয়ার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল।